A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

মালয়েশিয় বিমান রহস্য: ছিনতাইয়ের আশংকা সামনে রেখে চালকদের ব্যাপারে খোঁজখবর | Probe News

প্রোবনিউজ, ডেস্ক: সন্দেহের তীর এবার পাইলট আর কো-পাইলটের দিকে। তারাই কি জড়িত, বিমান ছিনতাইয়ের সঙ্গে? এই প্রশ্নকে সামনে রেখেই শনিবার তল্লাশি করা হয়েছে নিখোঁজ হওয়া বিমানের পাইলটদের বাড়িতে।
ঐদিন মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের নিখোঁজ বিমান এমএইচ ৩৭০ এর যোগাযোগ ব্যবস্থা পরিকল্পিত ভাবেই বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল বলে দাবি করেন দেশটির সরকার M Asia 2.jpgনাজিব রাজ্জাক। তিনি বলেন, স্যাটেলাইট ও রাডারের তথ্য থেকে এটা বোঝা যায় যে, বিমানটি তার গতিপথ পরির্বতন করে সাত ঘণ্টা আকাশে উড়তে থাকতে পারে। বিমানের ভিতরে থাকা কেউ এ কাজ করেছে বলে তিনি জানান। ফলে তদন্ত নতুন মোড় নেয়।
বিমানের চালক জাহারি আহমদ শাহ এবং সহ-চালক ফারিক আব্দুল হামিদের পারিবারিক জীবন, ধর্মীয় বিশ্বাস এবং মনস্তাত্ত্বিক বাস্তবতার ব্যাপারে ব্যাপক খোঁজখবর করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে মালয়েশিয়া কর্তৃপক্ষ।
শনিবারের অনুসন্ধানের পর মালয়েশিয় পুলিশের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, জাহারি ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে মালয়েশিয় বিমানে কর্মরত আছেন, এবং তিনি খুব অভিজ্ঞ পাইলটদের একজন। অন্যদিকে ফারিক ককপিট-বিদ্যায় সদ্য স্মানক ডিগ্রি নিয়েছেন। এই ফারিকের বিরুদ্ধে ২০১১ সালে ককপিটে ২ নারীকে ডেকে নিয়ে বসানোর অভিযোগ আছে।
এরআগে বিমান নিখোঁজের তদন্তে গঠিত দলের একজন দাবি করেন, বিমানটি নিখোঁজ হওয়ার সকল আলামত দেখে তারা সিদ্ধান্তে এসেছেন বিমানটি কে বা কারা ছিনতাই M Asia 3.jpgকরে অন্যত্র নিয়ে গেছে। তদন্ত দল আর মালয়েশিয় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের বরাতে মালয়েশিয় সংবাদমাধ্যম স্টার অনলাইন সহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছে। তবে ঘটনার পরপরই তদন্ত দলের প্রধান এই মতামতকে অস্বীকার করেন। আর প্রধানমন্ত্রী খবরটি নিশ্চিত না করলেও ছিনতাইয়ের সম্ভাবনার কথা স্বীকার করেন।
এদিকে নিখোঁজ যাত্রিবাহী বিমানের অনুসন্ধানে সহযোগিতায় নেমেছে বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে শনিবার থেকে অনুসন্ধান কাজে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী মাহবুবুল শাকিল এ কথা জানান। তিনি জানান, এতে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর দুটি এয়ারক্রাফট ও দুটি ফ্রিগেট। জানা গেছে, ডরনিয়ার টু টু এইট এনজি এয়ারক্রাফট এবং বিএনএস উমর ফারুক ও বিএনএস বঙ্গবন্ধু এই অনুসন্ধান কার্যক্রম চালাবে।
প্রসঙ্গত, গত ৮ মার্চ ২৩৯ জন যাত্রী নিয়ে কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিংয়ের উদ্দেশ্যে উড্ডয়নের ঘণ্টাখানেক পর বিমানটি উধাও হয়ে যায়। ১৩টি দেশের প্রায় একশটি বিমান ও নৌযান গত সাত দিনে দক্ষিণ চিন সাগরে তল্লাশী চালিয়েও বিমানের কোনো খোঁজ পায়নি।
প্রোব/বান/আন্তর্জাতিক ১৬.০৩.২০১৪

১৬ মার্চ ২০১৪ | আন্তর্জাতিক | ১২:০৫:২৩ | ১৮:১৭:৪৫

আন্তর্জাতিক

 >  Last ›