A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

উপজেলা নির্বাচনের ৩য় পর্যায় জনপ্রিয়তা নিশ্চিত করার চুড়ান্ত লড়াই | Probe News

upozila nirbachonপ্রোব নিউজ,ঢাকা: শনিবার ৩য় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন আগের দ্ইু ধাপের চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বর্পূর্ন হয়ে উঠেছে। কারন এই ধাপের মধ্য দিয়ে অধিকাংশ উপজেলার নির্বাচন সম্পন্ন হবে। ফলে উপজেলা নির্বাচনের ফলাফল শেষ পর্যন্ত কোন দলের পক্ষে যাবে তা স্পষ্ট হবে ৩য় ধাপের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে। তাই বড় দু’টি রাজনৈতিক দলই শনিবারে নির্বাচনকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে।

দুই দফায় মোট মোট ২১২টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন হয়েছে। আর শনিবার আরো ৮৩ উপজেলায় নির্বাচন। শনিবারের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ২৯৫টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন শেষ হওয়ার কথা। ৪৮৭টি উপজেলার মধ্যে বাকি থাকবে আর ১৮২টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। তাই শনিবারের নির্বাচন নানা দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে প্রায় দুই তৃতীয়াংশ উপজেলার নির্বাচন শেষ হবে। ফলে শনিবারের নির্বাচন উপজেলা পরিষদে জনপ্রিয়তা পুরোপুরি স্পষ্ট করে দেবে।
result.JPG১৯শে ফেব্রুয়ারির প্রথম ধাপে ৯৭টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে বিএনপি এগিয়ে থাকে। চেয়ারম্যান পদে বিএনপি’র ৪৪ জন, আওয়ামী লীগের ৩৩ জন এবং জামায়াতের ১৩ জন বিজয়ী হন। ২৭শে ফেব্রুয়ারি ২য় ধাপে ১১৫টি উপজেলার নির্বাচনে বিএনপি ৫৩, আওয়ামী লীগ ৪৪ এবং জামায়াতের ৮ জন চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হন। আর দুই ধাপের ফলাফলে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি ৯৭, আওয়ামী লীগ ৭৭ এবং জামায়াত ২১টি উপজেলায় জয় পায়। স্বতন্ত্র এবং অন্যান্যরা চেয়াম্যান পদে ১৩টি উপজেলায় জয়ী হয়েছেন। দুই ধাপে প্রায় ৫০ ভাগ উপজেলা
পরিষদের নির্বাচনে চেয়াম্যান পদে ২০টি আসন বেশি পেয়ে বিএনপি এককভাবেই আওয়ামী লীগের চেয়ে এগিয়ে আছে। শনিবার তৃতীয় ধাপে যদি বিএনপি এই জয়ের ধারা ধরে রাখতে পারে তাহলে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তারাই সবচেয়ে জনপ্রিয় দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে বলে বিশ্লেষণে মনে হয়। তবে বিএনপি’র এই জয়ের ধারাকে আওয়ামী লীগ গুরত্বে সঙ্গে নিয়েছে। প্রথম দফা নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হলেও ২য় BNP-logo.jpgদফায় শান্তি বাজায় থাকেনি। আর ৩য় দফা নির্বাচনেই আগেই সহিংসতা শুরু হয়েছে।
নির্বাচনেও একই আশঙ্কা করা হচ্ছে। গাজীপুরের শ্রীপুরে নির্বাচনের আগেই একজনকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।

এপর্যন্ত ২১২টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে জামায়াতের ১৩ জন চেয়াম্যান পদে জয়ী হলেও ভাইস চেয়ারম্যান পদে তারা চমক দেখিয়েছে। সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুয়ায়ী জামায়াতের ৮৩ জন ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়ী হয়েছেন। তারা ৫ বছর
আগেই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ঠিক করে রাখে এবং বাকি নির্বাচনেও তারা তাদের ভাইস চেয়ারম্যান পদ প্রার্থীদের ব্যাপারে সক্রিয়। আর যুদ্ধাপরাধের মামলায় অভিযুক্ত ১০ জনের মধ্যে ৭ জনের উপজেলায়ই জামায়াত চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিয়েছে।তারা এই নির্বাচনের মাধ্যমে নিজেদের অবস্থান সংহত করার পাশাপাশি যুদ্ধাপরাধের বিচার ইস্যুতে জামায়াত লাভ-ক্ষতির হিসাবটাও দেখতে চায়।

উপজেলা নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগ হোঁচট খেয়েছে এরইমধ্যে। আর নির্বাচন Bangladesh_Awami_League.pngকমিশন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর আচরনে বিএনপি ক্ষোভ প্রকাশ করলেও ফলাফলে সন্তুষ্ট।বিএনপি’র চেয়ার পার্সনের উপদেষ্টা আহমেদ আজম খান প্রোব নিউজকে বলেন, ‘তাদের আশঙ্কা আওয়ামী লীগ শনিবারের নির্বাচনে কারচুপি ও সহিংসতার আশ্রয় নেবে।’ তিনি বলেন, ‘এরইমধ্যে উপজেলা পরিষদের দুই পর্বের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হয়েছে। প্রথম ধাপে ভরাডুবি হওয়ার পর তারা ২য় ধাপে কারচুপি এবং সহিংসতার মাধ্যমে ফলাফল নিজেদের পক্ষে আনার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে। তাই শনিবারসহ পরবর্তী ধাপের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ আরো মরিয়া হয়ে উঠবে।’ আহমেদ আজম খান বলেন,‘ বিএনপি প্রতিকুল অবস্থার মধ্যে নির্বাচন করছে।
নির্বাচন যদি স্বচ্ছ এবং শান্তিপূর্ণ হত তাহলে বিএনপি উপজেলায় ৭৫ ভাগ আসন পেত। এরইমধ্যে এই নির্বাচনের মাধ্যমেই প্রমাণ হয়েছে বিএননি বাংলাদেশের JAMAAT_LOGO.jpgসবচেয়ে জনপ্রিয় দল। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে বিএনপিই জনপ্রিয় দল হিসেবে ক্ষমতায় যাবে’

আর আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত প্রোব নিউজকে বলেন,‘ নির্বাচনে সহিংসতা বা কারচুপির অভিযোগ দেখবে নির্বাচন কমিশন। সরকার এই নির্বাচনে কোন প্রভাব বিস্তার করছেনা। অতীতেও কোন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সরকার প্রভাব বিস্তার করেনি। মাঠ গরম করার জন্য বিএনপি এখন নানা অভিযোগ করছে।’ সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন,‘ ৫ই জানুয়ারির নির্বাচন বয়কট করার ভুল বুঝতে
পেরে বিএনপি এখন উপজেলা নির্বাচন আঁকড়ে ধরেছে। তারা চাইছে এটা নিয়ে দলের লোকজনকে সন্তুষ্ট করতে।’ তাঁর মতে,‘
Upozila-Election- 4.jpgস্থানীয় সরকার আর জাতীয় নির্বাচন এক নয়। স্থানীয় নির্বাচনে জয় দিয়ে জাতীয় নির্বাচনের জয় আশা করা যায়না। এই নির্বাচন দিয়ে জাতীয় নির্বাচনের জনপ্রিয়তাও
মাপা যায়না। বিএনপি জাতীয় নির্বাচন হারিয়ে এখন স্থানীয় নির্বাচন নিয়ে হই চই করছে।’

শনিবারে পর ২৩শে মার্চ উপজেলা নির্বাচনের ৪র্থ পর্যায়ে ৯২টি এবং ৩১শে মার্চ ৫ম পর্যায়ে ৭৪টি উপজেলায় নির্বাচন হবে। এপ্রিলে ৬ষ্ঠ ধাপে ২২টি উপজেলার নির্বাচন হওয়ার কথা। তবে ৬ষ্ঠ ধাপের তফসিল এখনো ঘোষণা করেনি নির্বাচন কমিশন।
প্রোব/জাতীয়/হার/১৪.০৪.১৪

১৪ মার্চ ২০১৪ | জাতীয় | ১৮:৪৭:১৪ | ১২:১৪:২৪

জাতীয়

 >  Last ›