A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

জাতীয় পার্টিতে ‘দালাল’ ইস্যু | Probe News

প্রোব নিউজ, ঢাকা: জাতীয় পার্টিতে এখন বহুল ব্যবহৃত শব্দটি হল ‘দালাল’, একনেতা আরেক নেতাকে প্রকাশ্যেই দালাল বলছেন। এমনকি অনেক শীর্ষ নেতাকেও দালাল বলে আখ্যা দিচ্ছেন তৃণমূলের কর্মীরা। আর তা দলের চেয়ারম্যানের সামনেও। ‘দালাল’ শব্দটি এখন যেন জাতীয় পার্টির একটি স্লোগান।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাহারকারীদের নিয়ে মঙ্গলবার বৈঠক করেন দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। এসময় এরশাদের পাশে থাকা মহাসিচব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য এসএম ফয়সাল চিশতী ও যুগ্ম-মহাসচিব রেজাউল ইসলাম ভূইয়াকে ইঙ্গিত করে কয়েক দফা দালাল বলে চিৎকার করেন মনোনয়ন প্রত্যাহারকারীরা। পরে এরশাদ তাদের থামিয়ে দেন।
আর ১২ই ফেব্রুয়ারি ঢাকায় এরশাদ জাতীয় পার্টির জেলা নেতাদের সঙ্গে মত বিনিময় করেন। কিন্তু সেখানে জাতীয় পার্টির ৩৪ এমপি’র মধ্যে ছিলে মাত্র ৪ জন। তখনও তৃণমূলের নেতারা দালাল দালাল বলে চিৎকার করেন।
নির্বাচনের গত ৫ ডিসেম্বর দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও পানি সম্পদ মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদকে দালাল বলে দুয়ো দেন জাপার নেতাকর্মীরা। ওইদিন রাতে তিনি এরশাদের প্রেসিডেন্ট পার্ক বাস ভবনে ঢোকার সময় নেতাকর্মীরা আওয়ামী লীগের দালালেরা হুঁশিয়ার, সাবধান, দালাল, দালাল, দালাল খেদাও বলে সেøাগান দেয়।
আর গত বছরের ১৪ই নভেম্বর বনানীর জাপা চয়ারম্যানের কার্যালয়ে জাতীয় ছাত্রসমাজ আয়োজিত এক যোগদান সভায় বক্তব্য দেন দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু। ভাষণদানকালে ছাত্র সমাজের নেতাকর্মীরা হৈ-চৈ শুরু করে দেয়। এ সময় বিক্ষুব্ধ কর্মীরা ‘দালালেরা হুঁশিয়ার সাবধান, দালালি আর করিস না, পিঠের চামড়া থাকবে না’ বলে শ্লোগান দেয়। উপস্থিত সিনিয়র নেতারা পরিস্থিতি শান্ত করেন।
নির্বাচনের আগে যেমন, নির্বাচনের পরেও তেমন জাতীয় পার্টিতে ‘দালাল’ ইস্যু সচল আছে।
প্রোব/রাজনীতি/ঢাকা/১১.০৩.১৪

১১ মার্চ ২০১৪ | জাতীয় | ১৮:৩৮:৫১ | ১৪:১৫:০৮

জাতীয়

 >  Last ›