A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমান: রহস্য নিয়ে বিশ্বজুড়ে আলোচনা | Probe News

Plane.jpg

প্রোবনিউজ, ডেস্ক:তিন দিন পরও মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানটির সন্ধান না মেলায় একে নজিরবিহীন রহস্যময় ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করেছেন দেশটির বেসামরিক বিমান চলাচল প্রধান। আর অনুসন্ধান তৎপরতা আরও বাড়াতে মালয়েশিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছে চীন।
এদিকে নিখোঁজ বিমানটির পরিণতি কি হয়ে থাকতে পারে তা নিয়ে গবেষণা শুরু করে দিয়েছেন বিমান বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, উড্ডয়ন এবং অবতরণের সময়টুকুই যেকোন ফ্লাইটের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অংশ। আর পৃথিবীপৃষ্ঠ থেকে ১১ কিলোমিটার উপরে নিয়ন্ত্রিত গতিতে বিমান চালানোর সময় দুর্ঘটনা খুবই বিরল। আর তাই বিমান বিশেষজ্ঞদের ধারণা মালয়েশিয়ার বিমানটির সঙ্গে যা কিছুই হয়ে থাকুক না কেন তা খুব দ্রুত হয়েছে। আর সেকারণেই হয়তো পাইলট সময় পাননি বিপদ সংকেত পাঠানোর।
রাডার সংকেত অনুযায়ী বলা হয়েছে নিখোঁজ হওয়ার আগে বিমানটি গতিপথ পরিবর্তন করে মালয়েশিয়ায় ফেরত যাচ্ছিল । বিশেষজ্ঞদের মতে যদি তা সত্যি হয়ে থাকে তবে বিমানটি বিস্ফোরিত হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। তবে তখন আবার নতুন প্রশ্ন তৈরি হয়, পাইলট তাহলে সংকেত দেননি কেন?
যান্ত্রিক ত্রুটি বিশেষ করে ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়ার মত ঘটনা হয়ে থাকলেও পাইলট সাহায্য চাওয়ার মত সময় পেয়ে থাকেন উল্লেখ করে দুর্ঘটনা বিশেষজ্ঞ উইলিয়াম ওয়ালডক বলেন, পাইলট যোগাযোগ না করায় বোঝা যায় যা কিছু হয়েছে তা হঠাৎ এবং ভয়াবহ রূপেই হয়েছে।
বিমান বিশেষজ্ঞ স্কট হ্যামিল্টন বলেন, বিমানটির ভেঙে পড়া কিংবা সন্ত্রাসী হামলার শিকার হওয়া যে পরিণতিই হয়ে থাকুক না কেন তা এত কম সময়ের মধ্যে হয়েছে যে চালক কিংবা অন্যরা যোগাযোগ করতে পারেনি।
তবে রয়ে যাচ্ছে আরও কিছু প্রশ্ন। প্রথমত, যদি জঙ্গিরাই বিমান ছিনতাই করে থাকে, সে ক্ষেত্রে নিজেদের দাবি আদায় করার জন্য এটিসির সঙ্গে লাগাতার যোগাযোগ করে যাওয়ার কথা তাদের। আর যদি স্রেফ নাশকতার জন্যই বিমান ছিনতাই করে থাকে কোনও জঙ্গিগোষ্ঠী, তা হলে বিমান ধ্বংস করে দেওয়ার পরে সেটা সাধারণত তারা জানিয়ে দেয়। এ ক্ষেত্রে কিছুই হয়নি। তা হলে কি দুর্ঘটনা? সে সম্ভাবনাও কম। কারণ, Plane-6.jpg৩৫ হাজার ফুট উচ্চতায় যখন বিমানটি উড়ছিল, তখনও সুবাঙ্গের এটিসিকে কিছু জানায়নি সে। শুক্রবার রাতে আবহাওয়া খারাপ ছিল না। তবে অন্য একটি একটি বোয়িং ৭৭৭-এর চালক দাবি করছেন, শুক্রবার রাত দেড়টার (মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স জানিয়েছে সে সময়ই শেষ বারের মতো এটিসির সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছিল এমএইচ ৩৭০-র) কিছু পরেই হারিয়ে যাওয়া বিমানটির সঙ্গে যোগাযোগ করতে পেরেছিলেন তাঁরা। তখনই কো-পাইলটের সঙ্গে খুব অপরিষ্কার কথাবার্তা হয় তাঁর। সেই শেষ। আর যোগাযোগ করা যায়নি।
দ্রুত ঘটনার কারণ নির্ণয়ের তাগিদ দিয়ে তারা আরও বলেন, ফ্লাইট ডেটা, ভয়েস রেকর্ডার এবং বিমানের ধ্বংসাবশেষ থেকে ক্লু পাওয়া যেতে পারে। এদিকে বিমান নিখোঁজের ঘটনায় মালয়েশিয়ার আহ্বানে সাড়া দিয়ে তদন্ত শুরু করতে এশিয়ায় যাচ্ছেন মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই এবং বোয়িং বিমান বিশেষজ্ঞ দল।
এদিকে মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানে ভুয়া পাসপোর্ট নিয়ে আরোহণকারী দুই সন্দেহভাজনের একজনকে সনাক্ত করেছে পুলিশ। দেশটির পুলিশের আইজি তান শ্রী খালিদ আবু বকর বলেন, কুয়ালালামপুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে সনাক্ত করা হয়েছে তাকে।
তবে ভুয়া পাসপোর্টধারী সন্দেহভাজন লোকটি মালয়েশিয়া কিংবা চীনের নয় জানিয়ে তিনি বলেন লোকটি ঠিক কোন দেশের তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। মালয়েশিয়ায় Plane2.jpgপ্রবেশের সময় কোন সন্দেহভাজন দুইজনের অভিবাসন তথ্য রেকর্ড রাখা হয়েছিল কিনা; সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে খালিদ বলেন, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে।
বিমান নিখোঁজের ঘটনায় সন্ত্রাসবাদ জড়িত কিনা সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা। চীনা জঙ্গি সংগঠন নিখোঁজ বিমানের দায় স্বীকার করেছে এমন তথ্যের সত্যতা পাওয়া যায়নি জানিয়ে তিনি আরও বলেন তদন্তকারী দল সব দিক বিবেচনা করে তদন্ত করছে। পাশাপাশি বিমান নিখোঁজের ঘটনাটি নিয়ে অতিরঞ্জন না করতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন খালিদ।
এদিকে রোববার কেলানতান উপকূল থেকে সংগ্রহ করা হলদেটে রংয়ের তেলের নমুনা নিখোঁজ বিমানটির নয় বলে নিশ্চিত করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার পর মালয়েশিয়ার সামুদ্রিক শক্তি সংস্থার প্রধান দাতুক নাসির আলম বলেন নমুনাটি বিমানের নয়; বরং জাহাজের বাংকার থেকে চুইয়ে পড়া তেল। অভিযানের তিন দিন পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত বিমানের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি জানিয়ে তিনি বলেন এ নিয়ে এক প্রত্যক্ষদর্শীর বক্তব্য নেয়া হয়েছে। ঘটনার দিন বিমানের মত দেখতে কিছু একটা নিচে নেমে যেতে দেখেছেন বলে দাবি করেন ঐ প্রত্যক্ষদর্শী। তবে তার বক্তব্য অনুযায়ী সম্ভাব্য এলাকায় অভিযান চালিয়েও ব্যর্থ হতে হয়েছে বলে জানান নাসির।
এর আগে মালয়েশিয়ার বেসামরিক বিমান চলাচলের প্রধান জানান, বিমানে আরোহণের জন্য সব প্রক্রিয়া শেষ করার পরও শেষ পর্যন্ত পাঁচ যাত্রী বিমানে উঠেননি। আর তারা বিমানে আরোহণ করেননি নিশ্চিত হওয়ার তাদের মালামাল সরিয়ে ফেলে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।
প্রোব/ফাউ/ডেস্ক/১০.০৩.২০১৪

১০ মার্চ ২০১৪ | আন্তর্জাতিক | ১২:১৮:১২ | ১৪:৫৮:৪৮

আন্তর্জাতিক

 >  Last ›