A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

জাতীয় সংসদ ভবনের ইতিবৃত্ত | Probe News

প্রোব নিউজ, ঢাকা: স্থাপত্য কলার অপূর্ব নিদর্শন হিসেবে বিশ্বের অন্যতম দশটি ভবনের মধ্যে একটি লুই আই কানের নকশায় গড়া বাংলাদেশের সংসদ ভবন। এ ভবনের কোথাও রঙের কিংবা রঙ্গিন কাঁচের বাহুল্য নেই। তবে আছে জ্যামিতিক সৌন্দর্য। ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ, অষ্টভুজ, আয়তক্ষেত্র, বর্গক্ষেত্র ও বৃওসহ জ্যামিতি শাস্ত্রের প্রায় সবগুলো ক্ষেত্রই রয়েছে ভবনের দেয়াল বা ছাদ জুড়ে। আর ভবনটির চারপাশ জুড়ে রয়েছে পানি। প্রকৃতি আর জ্যামিতির এমন সম্মিলনে ভবনটি নজর কেড়েছে দেশি -বদেশী সৌন্দর্যপ্রিয় মানুষের। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের ঢল নামে সংসদ ভবন চত্ত্বরে। ভবনটি নির্মাণ করতে সময় লেগেছে প্রায় ২০ বছর।
সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, ১৯৫৯ সালের ১২ ও ১৩ ই জুন পাকিস্তানের নাথিয়াগলিতে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের সভাপতিত্বে প্রাদেশিক গভর্নরদের এক সন্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলনে ঢাকাতে পাকিস্তানের দ্বিতীয় রাজধানী স্থাপনের সিদ্ধান্ত গৃিহত হয়। সে লক্ষ্যে ১৯৬১ সালে ঢাকার শের-ই বাংলানগরে সংসদ ভবন নির্মাণের জন্য ২০৮ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়। ১৯৬৪-১৯৬৫ অর্থ বছরে এই ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু হয়ে ১৯৮৪ সালের জুন মাসে শেষ হয় । ১৯৮২ সালের ২৮ জানুয়ারি ভবনটি উদ্বোধন করেন রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আব্দুস সাত্তার।
ভবনের স্থপতি নিয়োগ করা হয় আমেরিকার বিখ্যাত স্থপতি লুই আই কানকে। কিন্তু তিনি তার কাজ সম্পন্ন করতে পারেননি। ভবনের নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার আগেই মৃত্যু বরণ করেন লুই আই কান। মৃত্যুর পর তার ঘনিষ্ঠ সহযোগী হেনরী এন উইলকটের প্রতিষ্ঠান মেসার্স ডেভিড উইজডম এন্ড এসোসিয়েটস বাকি কাজ সম্পন্ন করেন।
নকশা অনুযায়ী পুরো এলাকাকে সংসদ ভবন; এমপি হোস্টেল, মন্ত্রী ও সচিবদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা- এই মূল তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। তবে মূল সংসদ ভবন নয়টির ব্লক রয়েছে। সংসদের অধিবেশন কক্ষটি সংসদ ভবনের কেন্দ্রে অবস্থিত। এটি একটি অষ্টভুজাকৃতির কক্ষ।
সংসদ ভবন নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ১২৮ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। তবে মূল প্রাক্কলিত ব্যয় ছিল চার কোটি ৮৬ লাখ টাকা। সংসদ ভবনের নীচতলার মেঝের আয়তন এক লাখ ৫০ হাজার বর্গফুট এবং ১০ তলা উচ্চতার এ ভবনের পুরো মেজের আয়তন আট লাখ ৮৩ হাজার বর্গফুট।
ভবনটি নির্মাণে পাথরের প্রয়োজন হয়েছে ২৫ লাখ ঘনফুট। ভবনটিতে স্থায়ী কক্ষ ৪০০টি, মোট আসন সংখ্যা ৫৮১টি, সংসদ সদস্য সদস্যদের জন্য আসন ৩৫৪টি, দরজা এক হাজার ৬৩৫টি, জানালা ৩৩৫টি, সিড়ি ৫০টি, লিফট ১৯টি, স্পট লাইট ৩০০টি, প্রেসিডেন্ট ও স্পীকারের অতিথি গ্যালারি ৪১টি, সাংবাদিকদের জন্য আসন ৭০টি এবং সচিব ও কর্মকর্তাদের জন্য আসন ৬০টি আসন রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে, রাষ্ট্রপতির কক্ষ, স্পিকার চেম্বার, প্রধানমন্ত্রী, সংসদ উপনেতা, ডেপুটি স্পিকার, চিপ হুইপ এবং সংসদ সচিবের অফিস। সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের সভাকক্ষ ও বিরোধীদলের সভাকক্ষ ছাড়াও রয়েছে বিরোধী দলীয় নেতা, উপনেতার অফিস, স্থায়ী কমিটি কক্ষ, ভিআইপি গ্যালারি, সাংবাদিক গ্যালারি, দর্শনার্থী গ্যালারি, মসজিদ, গ্রন্থাগার ও চিকিৎসা কেন্দ্র।
প্রোব/শর/জাতীয়/০৯.০৩.২০১৪
৯ মার্চ ২০১৪। জাতীয়

৯ মার্চ ২০১৪ | জাতীয় | ২০:৪২:৫৭ | ১৩:২৩:৩৭

জাতীয়

 >  Last ›