A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

দেশে ফিরছেন না ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক! জামায়াত নেতাদের মামলা পরিচালনায় বিপাকে জুনিয়র আইনজীবীরা | Probe News

international-crimes-tribunal-in-bangladesh.jpg

প্রোবনিউজ, ঢাকা: জামায়াতের সহকারি সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক সহসাই দেশে ফিরছেন না। বর্তমানে তিনি ওমরাহ্ হজের জন্য সৌদি আরবে রয়েছেন। গত ১৭ ডিসেম্বর তিনি ঢাকা ত্যাগ করেন। পরদিন রাজধানীর কলাবাগান থানায় দায়েরকৃত ভাঙচুর ও বিস্ফোরক আইনের একটি মামলায় তাকে আসামি করা হয়েছে। আর তাঁর অনুপস্থিতে মানবতাবিরোধী অন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুন্যালে (আইসিটি) জামায়াত নেতাদের মামলা পরিচালনায় বিপাকে আছেন জুনিয়র আইরজীবীরা।
জানা গেছে, আব্দুর রাজ্জাকের ঢাকা ত্যাগের পরদিন ১৮ ডিসেম্বর রাজধানীর কলাবাগান থানায় দায়েরকৃত ভাঙচুর ও বিস্ফোরক আইনের একটি মামলায় স্থানীয় জামায়াত কর্মীদের সঙ্গে তাকেও আসামী করা হয়। মামলার বাদী পুলিশের সহকারি উপ-পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ। কলাবাগান থানার ওই মামলা নম্বর - ৭/১৮ ডিসেম্বর ২০১৩।
এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শেখ মোর্শেদ আলী জানান, ‘গ্রিন রোডের জিনজিরা হোটেলের logo.jpgসামনে বোমাবাজি ও ভাঙচুর ঘটনায় ৩৩ জনের নাম উল্লেখ করে এবং আরো ৫০/৬০ জন অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করা করা হয়েছে। এর মধ্যে ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাকের নামও রয়েছে। তদন্তে জানতে পেরেছি, ব্যারিস্টার রাজ্জাক সেদিন দেশে ছিলেন না। ভুলবশত তার নামটি আসামির তালিকায় দেয়া হয়েছে।’
মামলার তদন্তকারী এই পুলিশ কর্মকর্তা বর্তমানে টাঙ্গাইলে প্রশিক্ষণে রয়েছেন। টেলিফোনে তিনি প্রোবনিউজকে জানান, ‘এ মামলায় কলাবাগান থানা জামায়াতের সেক্রেটারি মোশাররফ হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে ব্যারিস্টার রাজ্জাকের নামটি বাদ দেয়া হতে পারে।’ এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কলাবাগান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইকবাল কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।
এদিকে, রাজ্জাকের অনুপস্থিতিতে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালে বিচারাধীন জামায়াত নেতাদের মামলা নিয়ে সংকটে পড়েছেন জুনিয়র আইনজীবীরা। বিশেষ করে উচ্চ আদালতেRazzaq 11.jpg আপিল বিভাগের মামলা পরিচালনায় দক্ষতার ঘাটতি রয়েছে তাদের। এ প্রসঙ্গে কারাবন্দি জামায়াত নেতাদের আইনজীবী তাজুল ইসলাম প্রোবনিউজকে বলেন, ‘ব্যারিস্টার রাজ্জাক অভিজ্ঞ আইনজীবী। আপিল বিভাগের মামলায় দক্ষতার সঙ্গে তার মত যুক্তি-তর্ক উপস্থাপন সম্ভব হচ্ছে না।’
তাজুল ইসলাম দাবী করেন, ‘ব্যারিস্টার রাজ্জাক যাতে মামলা পরিচালনা করতে না পারেন; সে জন্যই পরিকল্পিতভাবে তাকে মিথ্যা মামলায় আসামি করা হয়েছে। শোনা যাচ্ছে, দেশে এলে বিমানবন্দরেই তাকে আটক করা হতে পারে।’
জানা গেছে, আব্দুর রাজ্জাক ঢাকা থেকে প্রথমে যুক্তরাষ্ট্রে যান। সেখান থেকে যান লন্ডনে এবং সেখানেই অবস্থান করছিলেন। গত সপ্তায় ওমরাহ্ হজ করতে তিনি সৌদি আরব যান।। দলীয় সূত্রের দাবি, তিনি যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশ, মুসলিম দেশ এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনে আইসিটি’র মামলা বিষয়ে তদবির চালাচ্ছেন।
এদিকে, আড়াই মাসেও দেশে না ফেরায় আব্দুর রাজ্জাকের বিদেশ অবস্থান নিয়ে জামায়াতের নেতাকর্মীদের মাঝে ধু¤্রজালের সৃষ্টি হয়েছে। বলা হচ্ছে, মানবতা বিরোধী অপরাধের মামলা থেকে কারাবন্দী নেতাদের বাঁচাতে আব্দুর রাজ্জাক আন্তর্জাতিক মহলে লবিংয়ের জন্য বিদেশে অবস্থান করছেন। নেতাকর্মীদের আশঙ্কা, দেশে ফিরলে তাকেও গ্রেফতার করা হতে পারে। সরকার তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের মাধ্যমে গ্রেফতারের ক্ষেত্রও তৈরি করেছে। এজন্য গ্রেফতার এড়াতে তিনি খুব শিগগির দেশে ফিরছেন না। এ প্রসঙ্গে আব্দুর রাজ্জাকের জুনিয়র ব্যারিস্টার মোমেন প্রোবনিউজকে জানান, ‘তিনি (আব্দুর রজ্জাক) ব্যক্তিগত কাজে বিদেশে অবস্থান করছেন।’
রাজ্জাকের পুত্র ব্যারিস্টার ইমরান পিতার নামে দায়েরকৃত মামলা প্রসঙ্গে প্রোবনিউজকে বলেন, ‘এটি যে মিথ্যা ও হাস্যকর মামলা তা বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ, ‘আমার আব্বা ১৭ ডিসেম্বর বিদেশে গেছেন। আর মামলা হয়েছে ১৮ ডিসেম্বর। আমরা সত্যিই বিস্মিত।’ রাজ্জাক কবে নাগাদ দেশে ফিরবেন, তা নিশ্চিত করে বলতে পারেন নি তার পুত্র।
প্রোব/পিএইচ/জাতীয়/ ০৮.০৩.২০১৪
৮ মার্চ ২০১৪। জাতীয়

৮ মার্চ ২০১৪ | জাতীয় | ১৬:০৭:৫৫ | ১৫:২৭:২৮

জাতীয়

 >  Last ›