A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

চারুকলায় অস্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় শিক্ষক নিয়োগের তোড়জোড় | Probe News

Charukala 2.jpgপ্রোব নিউজ, ঢাকা: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের অংকন ও চিত্রায়ণ বিভাগের শিক্ষক নিয়োগে অস্বচ্ছতা ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগ তুলেছেন প্রভাষক পদে আবেদনকারী প্রার্থীরা ও সংশ্লিষ্ট বিভাগের অনেকে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিভাগীয় চেয়ারম্যান অধ্যাপক জামাল উদ্দিন।
শিক্ষক নিয়োগে প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিল করায় এ অভিযোগ আরো জোরালো হয়ে উঠেছে। এ অভিযোগের তীর বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক জামাল উদ্দিন ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দিকে। এমনকি এ নিয়োগ প্রক্রিয়ার অগ্রগতি সম্পর্কেও তার কিছু জানা নেই বলে উল্লেখ করেছেন তিনি। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ও নিয়োগ কমিটির চেয়ারম্যান বলছেন, শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিলে দোষ নেই। তবে কোন প্রেক্ষিতে শিথিল করা হচ্ছে তার বাস্তবতা ভেবে দেখা উচিত।
এদিকে নিয়োগ প্রক্রিয়ার অস্বচ্ছতার ফিরিস্তি উল্লেখ করে ‘চারুকলা অনুষদকে ধ্বংসের কবল থেকে রক্ষা করুন’ শীর্ষক একটি লিখিত বক্তব্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, ডিন, সিন্ডিকেট সদস্য, দুর্নীতি দমন কমিশন, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) এবং গণমাধ্যমসহ বিভিন্ন মহলে বিতরণ করা হয়েছে।
‘নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রভাষক পদের কয়েকজন আবেদনকারী’র বরাত দিয়ে লেখা ওই Charukala 3.jpgঅভিযোগে বলা হয়েছে, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী আবেদনকারীকে শিক্ষা জীবনের প্রতিটি পর্যায়ে প্রথম শ্রেণী বা বিভাগ (চারটি প্রথম শ্রেণী) থাকা বাঞ্চনীয় হলেও ২০১৩ সালের নভেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে কয়েকটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞাপনে প্রার্থীদের শিক্ষাগত যোগ্যতার এ নিয়মটি শিথিল করা হয়েছে। কী কারণে শিথিল করা হয়েছে তা অংকন ও চিত্রায়ণ বিভাগের চেয়ারম্যানের কাছে জানতে চাইলে বিভাগে বিনা পারিশ্রমিকে কর্মরত জনৈক কামাল উদ্দিনের জন্য এ পদটি সৃষ্টি করা হয়েছে। তাই ওই পদে আমাদেরকে আবেদন না করার জন্য পরামর্শ দেন তিনি।’
তবে এ অভিযোগের সত্যতা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে অধ্যাপক জামাল উদ্দিন প্রোবকে বলেন, ‘নিয়োগ প্রক্রিয়ার অগ্রগতি সম্পর্কে তার কিছুই জানা নেই।’ পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশ পর্যন্ত তিনি অবগত রয়েছেন। উপরন্তু, তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘আমি বিভাগের চেয়ারম্যান। আমি কিছু জানিনা। অন্যরা এতসব জানলো কিভাবে’?
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চারুকলা অনুষদের অংকন ও চিত্রায়ণ বিভাগে সহকারি অধ্যাপকের শুন্য পদের বিপরীতে একজন অস্থায়ী প্রভাষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। এ পদের বিপরীতে মোট ১৫জন প্রার্থী আবেদন করেছেন। যাদের মধ্যে ১০ জনেরই শিক্ষা জীবনের প্রতিটি পর্যায়ে প্রথম শ্রেণী রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগের নিয়ম অনুযায়ী এসব প্রার্থীদের মধ্যে থেকে কাউকে নিয়োগ না দিয়ে এমন একজনকে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে, যার শিক্ষা জীবনের প্রতিটি ধাপে প্রথম শ্রেণী নেই। এমনকি সম্মান পর্যায়ে একাধিক বিষয়ে অকৃতকার্য হওয়ার রেকর্ড রয়েছে। এরপরেও তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিনা বেতনে নিযুক্ত রয়েছেন।
এক্ষেত্রেও অভিযোগ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া কেবল বিভাগীয় প্রধানের ইচ্ছায় ওই প্রার্থীকে দিয়ে ক্লাস নেয়া হচ্ছে এবং বিজ্ঞপ্তির ঘোষণা অনুযায়ী এই বিনা বেতনে নিযুক্ত থাকা ব্যক্তিকেই ‘বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে আউটস্ট্যান্ডিং কন্ট্রিবিউশন’ হিসেবে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা শিথিল বলে বিবেচনা করা হয়েছে। এদিকে আবেদনকারীদের অভিযোগ, ওই প্রার্থীকে বিনা বেতনে নিযুক্ত রাখা এবং বিজ্ঞাপনে উল্লিখিত ‘বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে আউটস্ট্যান্ডিং কন্ট্রিবিউশন’ এর জন্যে শর্ত শিথিল করার বিষয়টি একই সূত্রে গাঁথা।
তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমেদ বলেন, চারুকলার শিক্ষার্থীদের মধ্যে থেকে শিক্ষা জীবনের প্রতিটি পর্যায়ে প্রথম শ্রেণী পাওয়া প্রার্থী না পাওয়ার সম্ভাবনা থেকেই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় শিক্ষাগত যোগ্যতার শর্তটি শিথিল করা হয়েছে। তারপরও ‘আউট স্ট্যান্ডিং কন্ট্রিবিউশন’ বলতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কি বোঝাতে চেয়েছে জানতে চাইলে অধ্যাপক নাসরীন আহমেদ জানান, ভাল মানের প্রদর্শনী, প্রকাশনা ও প্রার্থীর শিল্পগুনকে আউট স্ট্যান্ডিং কন্ট্রিবিউশন হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। তবে এ নিয়োগ প্রক্রিয়ার সর্বশেষ অগ্রগতি সম্পর্কে তারও জানা নেই বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।
তবে আবেদনকারীদের কাগজপত্র বাছাই প্রক্রিয়া শেষ হয়ে যাওয়ার দুই মাস পরেও নিয়োগ কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নাসরীন আহমেদের ‘নিয়োগ প্রক্রিয়ার অগ্রগতির বিষয়ে কিছুই না জানা’র ঘটনাকে বিস্ময়কর বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট অনেকে।
প্রোব/শর/জাতীয়/০৬.০৩.২০১৪
৬ মার্চ ২০১৪। জাতীয়

৮ মার্চ ২০১৪ | জাতীয় | ১০:৩৩:০১ | ২১:৩৫:২৮

জাতীয়

 >  Last ›