A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

লোকসভা নির্বাচনের নিয়মনীতি | Probe News

সুতীর্থ গুপ্ত, প্রোবনিউজ, ভারত: ভারতের ইতিহাসে দীর্ঘতম ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়ায় আগামী এপ্রিল-মে মাসে ভোট হতে চলেছে। ষোড়শ লোকসভা নির্বাচনের ভোট নেয়া হবে ৯ পর্বে । এটি একটি রেকর্ড বলে জানিয়েছেন নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা।

এর আগে ২০০৯ সালের লোকসভা নির্বাচন হয়েছিল সর্বোচ্চ ৫ পর্বে। গতবারের তুলনায় এবার ভোটার বেড়েছে ৯ কোটি ৭৬ লক্ষ। এই ভোটারদের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশই ৩৫ Loksabha 12.jpgবছরের নীচে। আর মোট ভোটারদের অর্ধেকই ২৫ বছরের নীচে। এবারের নির্বাচনে প্রথম নির্বাচন কমিশন ভোটের অগে ভোটারদের হাতে তুলে দেবে সচিত্র ভোটার স্লিপ। যা দেখিয়ে ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবেন এবং ভোট দেবার অধিকার পাবেন।

এছাড়া এবারই প্রথম না-ভোটের অধিকার দেওয়া হচ্ছে ভোটারদের। এজন্য ইভিএমে আলাদা একটি বোতাম থাকবে। নির্বাচন কমিশনার জানিয়েছেন, ‘এবারের নির্বাচনে থাকছে চার ধরনের পর্যবেক্ষক। প্রার্থীদের খরচের ওপর কড়া নজর রাখা হবে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানানো হয়েছে, ইলেকট্রনিক্স ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ হবে। এবারের লোকসভা ভোটে মোট পোলিং স্টেশন (বুথ) থাকবে ৯ লক্ষ ৩০ হাজার।’

এদিকে, আগামী লোকসভা নির্বাচনে সোস্যাল মিডিয়ার উপর নজর রাখা হবে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। মঙ্গলবার কলকাতায় এক আলোচনা চক্রে নির্বাচনী আধিকারিকরাLoksabha 14.jpg জানিয়েছেন, লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থীদের দেওয়া হলফনামায় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও অন্যান্য তথ্যের পাশাপাশি এবার থেকে সোস্যাল মিডিয়ায় প্রার্থীদের অ্যাকাউন্ট থাকলে তা অবশ্যই জানাতে হবে। জানাতে হবে মোবাইল নম্বরের পাশাপাশি ই- মেইল অ্যাকাউন্ট ও মোবাইল অ্যাপ সংক্রান্ত অ্যাকাউন্টের কথাও। সেই সঙ্গে এবার থেকে সোস্যাল মিডিয়াতে নির্বাচনী বিজ্ঞাপন দেবার জন্য নির্বাচন কমিশনের আগাম অনুমতিও নিতে হবে। বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী সব মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য প্রার্থী বা দলকে আগাম অনুমতি নিতে হয়। এবার প্রথম সেই আওতায় আনা হয়েছে সোস্যাল মিডিয়াকেও।

তবে ফেসবুক বা ট্যুইটারের মত সোস্যাল মিডিয়ায় দেওয়া বিজ্ঞাপন নির্বাচনের ৪৮ ঘন্টা আগে কিভাবে বন্ধ করা যায়, তা নিয়ে চিন্তাভাবনা করছে কমিশন। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচনের ৪৮ ঘন্টা আগে মোবাইল ফোনে এসএমএস’র মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারের উপরও লাগাম টানা হতে পারে। সংবাদপত্রের ইন্টারনেট সংস্করণে দেওয়া বিজ্ঞাপনের জন্যও নির্বাচন কমিশনের ছাড়পত্র লাগবে বলে জানানো হযেছে।

কমিশন জানিয়েছে, সোস্যাল মিডিয়ায় নির্বাচনী প্রচারের জন্য যে খরচ হবে তা প্রার্থীর Loksabha 13.jpgনির্বাচনী খরচ হিসেবে ধরা হবে। কমিশন এবারের লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থীর খরচ বাড়িয়ে ৭০ লক্ষ রুপি ঘোষণা করেছে । এর আগে প্রার্থীর ভোটের খরচ ছির ৪০ লক্ষ রুপি। জানা গেছে, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ কর্ণাটকের মত বড় রাজ্যে লোকসভা নির্বাচনের খরচ বাড়িয়ে ৭০ লক্ষ রুপি করা হয়েছে।

আর গোয়ার মত ছোট রাজ্যে সেই খরচ ২২ লক্ষ থেকে বাড়িয়ে ৫৪ লক্ষ রুপি করা হয়েছে। অন্যদিকে রাজ্যে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের খরচের পরিমাণ বাড়িয়ে করা হয়েছে ২৮ লক্ষ রুপি। আগে এই খরচের পরিমাণ ছিল ১৪ লক্ষ রুপি।

 

প্রোব/হার/আন্তর্জাতিক/০৫.০৩.২০১৪

৪মার্চ ২০১৪ । আন্তর্জাতিক

৫ মার্চ ২০১৪ | দক্ষিণ এশিয়া | ১৩:৪৪:৪২ | ১৫:৫২:২৭

দক্ষিণ এশিয়া

 >  Last ›