A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

আনিসুল হককে শেয়ার কেনার নির্দেশ হাইকোর্টের | Probe News

আনিসুল হককে শেয়ার কেনার নির্দেশ হাইকোর্টের

 

Anisul Hauque Mamla.jpg

প্রোবনিউজ, ঢাকা: এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি আনিসুল হককে কোম্পানির দুই উদ্যোক্তার শেয়ার ‘উপযুক্ত’ দাম দিয়ে কিনে নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট।
সোমবার বিচারপতি মো. রেজাউল হাসানের একক বেঞ্চে এ মামলার রায় ঘোষণা হয়।

 

বাদীপক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার আক্তার ইমাম জানান, রায়ে দেশ এনার্জি লিমিটেডের উদ্যোক্তা নূহের লতিফ খান ও তার বোন শাহপার সাবার শেয়ার উপযুক্ত দাম দিয়ে কিনে নিতে আনিসুল হক ও তার সহযোগীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে ।

 

উদীয়মান ব্যবসায়ী হিসাবে ২০১২ সালে ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের শিরোনামে আসা নূহের লতিফ খান মাত্র ২১ বছর বয়সে দেশ এনার্জি গড়ে তোলেন। সাবাও দেশ এনার্জির একজন উদ্যোক্তা পরিচালক। এ কোম্পানিতে তাদের শেয়ারের পরিমাণ ১০ শতাংশ করে।

 

২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠিত দেশ এনার্জি লিমিটেডের অধীনে সিলেটের কুমারগাঁওয়ে গ্যাসচালিত ও নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে তেলনির্ভর দুটি ভাড়াভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র রয়েছে, যার মোট উৎপাদন ক্ষমতা ১১০ মেগাওয়াট।

 

আনিসুল হক বর্তমানে দেশ এনার্জির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান এবং তার ছেলে নাভিদুল হক প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে রয়েছেন।
গত বছর ১৫ এপ্রিল আনিসুল হক ও তার ছেলে নাভিদুলের বিরুদ্ধে নানাভাবে ভয়ভীতি দেখানো এবং অব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কোম্পানিকে আর্থিক ক্ষতির মুখে ফেলার অভিযোগ এনে এই মামলা করেন নূহের ও তার বোন।
মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, গত দুই বছর ধরে দেশ এনার্জির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান আনিসুল হক এবং তার ছেলে ও প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক নাভিদুল হকের সঙ্গে দুই আবেদনকারীর সম্পর্কের অবনতি ঘটে। দুই উদ্যোক্তা পরিচালকের ‘ন্যায়সঙ্গত প্রত্যাশাকে’ পাশ কাটিয়ে বিবাদীরা ‘অবৈধ ও স্বেচ্ছাচারীমূলকভাবে’ প্রধান প্রধান ব্যবস্থাপনার সিদ্ধান্ত থেকে আবেদনকারীদের বাদ দেন। তাদের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও পরিচালকের দায়িত্ব পালনেও বাধা সৃষ্টি করা হয়। বিবাদীরা কোম্পানির কার্যক্রমকে ‘মারাত্মক অব্যবস্থাপনার’ মধ্যে ঠেলে দেন এবং দুই বাদীকে সরিয়ে দিতে হুমকি, ভয়ভীতি প্রদর্শন ও পীড়নের কৌশল গ্রহণ করেন।
অব্যবস্থাপনার দৃষ্টান্ত হিসাবে মামলায় বলা হয়, ‘অননুমোদিত’ কোম্পানির মাধ্যমে সস্তা যন্ত্রাংশ কেনায় সিদ্ধিরগঞ্জের ১০০ মেগাওয়াটের বিদ্যুত কেন্দ্রটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
এছাড়া পরিচালক হিসাবে নূহের বা তার বোনের স্বাক্ষর না নিয়েই দেশ এনার্জি থেকে বড় অংকের টাকা তুলেছেন আনিসুল হক, যার মাধ্যমে নিয়ম ভাঙা হয়েছে।
অভিযোগে বলা হয়, বোর্ড রেজ্যুলেশন অনুসারে কোম্পানির ব্যাংক অ্যাকাউন্ট দুটি গ্রুপের যৌথ স্বাক্ষরে পরিচালিত হওয়ার কথা। গ্রুপ-এ তে আছেন আনিসুল হক ও তার ছেলে নাভিদুল হক। আর গ্রুপ-বি তে রয়েছেন নূহের ও তার বোন। এই নিয়মের বিষয়টি ব্যাংককে জানানো থাকলেও দুই বিবাদী অন্য গ্রুপের কারো স্বাক্ষর ছাড়াই ২৮ লাখ টাকা তুলে নেন।
প্রোব/খোআ/জাতীয় ১৯.০৫.২০১৪

 

১৯ মে ২০১৪ | জাতীয় | ১৩:৫৫:২৬ | ১৬:৩৪:৪৩

জাতীয়

 >  Last ›