A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

পরীক্ষা পদ্ধতিরই ‘পরীক্ষা’র সুপারিশ বিশ্বব্যাংকের | Probe News

পরীক্ষা পদ্ধতিরই ‘পরীক্ষা’র সুপারিশ বিশ্বব্যাংকের


Exam system.jpgশফিক রহমান, প্রোবনিউজ: বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় চলমান পরীক্ষা পদ্ধতিরই পরীক্ষার সুপারিশ করেছে অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী বিশ্বব্যাংক।
গত মার্চে বিশ্বব্যাংকের প্রকাশিত ‘উর্বর মাঠে বীজ বোনা: যে শিক্ষা বাংলাদেশের কাজে লাগবে’ শীর্ষক এক গবেষণা প্রতিবেদনে এ সুপারিশ করা হয়েছে। সেখানে বিরাজমান পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রচলিত পরীক্ষা পদ্ধতিতে কী যাচাই হচ্ছে? কীভাবে যাচাই হচ্ছে? এবং পরীক্ষার ফলাফলে কতটুকুইবা শিক্ষার্থীদের মেধার প্রতিফলন ঘটছে?
এদিকে রোববার মাধ্যমিক, দাখিল এবং কারিগরী পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণার পরে পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে করা বিশ্বব্যাংকের এধরনের প্রশ্ন আরো প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠছে বলে মন্তব্য করেন শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এবং গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী প্রোবনিউজ’কে বলেন, বিশ্বের সব জায়গায় যেখানে শ্রেণীকক্ষের মূল্যায়নের ওপর নির্ভর করে শিক্ষার্থীদের মেধা যাচাই হচ্ছে, আমরা কেন তা পারছি না? শিক্ষার্থীদের মেধা যাচাই করতে নির্ভর করতে হচ্ছে পাবলিক পরীক্ষার ওপর। তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে।
প্রসঙ্গত, সম্প্রতি ঘোষিত ২০১৪ সালের মাধ্যমিক স্তরের পরীক্ষাসমূহের গড় পাসের হার ৯১ দশমিক ৩৪ শতাংশ।
অন্যদিকে, বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভেদে লেখাপড়ার মানের তারতম্যের কথাও উল্লেখ করা হয়েছে। বলা হয়েছে, একজন শিক্ষার্থীর ব্যক্তিগত ও পারিবারিক অবস্থার চেয়েও স্কুল বাছাইয়ের বিষয়টিই তার লেখাপড়াকে বেশি প্রভাবিত করছে। সবার ধারণা ‘ভালো’ স্কুলে ভর্তি হতে পারলে একজন শিক্ষার্থীর সামনের পথ খুলে যাবে। উচ্চতর শিক্ষাগত যোগ্যতাসহ সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নতির পথ সুগম হবে। অথচ দেশের অধিকাংশ স্কুলের মান বাড়াতে পারলে বাংলাদেশের শিক্ষাক্ষেত্রেও বড় ধরনের একটি পালাবদল হতে পারত বলে মনে করছে বিশ্বব্যাংক।
স্কুল ভেদে শিক্ষার মানের বৈষম্যকে এখাতের বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে উল্লেখ করেন রাশেদা কে. চৌধুরীও। তিনি বলেন, ‘আমরা টপ টেনের বলয় থেকে বের হতে পারছি না। সেরা স্কুলের তালিকায় পার্বত্য চট্টগ্রাম, কিশোরগঞ্জ বা কুড়িগ্রাম চর এলাকার কোন স্কুল উঠে আসছে না। যে করেই হোক শিক্ষার মানের এই বৈষম্য দূর করতে হবে’।
প্রোব/শর/পি/শিক্ষা/ ১৮.৫.২০১৪

১৮ মে ২০১৪ | জাতীয় | ২১:৩২:২৬ | ১৩:০৯:৫৮

জাতীয়

 >  Last ›