A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

‘দেশে প্রধানমন্ত্রীর একনায়কতন্ত্র চলছে’ | Probe News

pmo-01.jpg

টিআইবির প্রতিবেদন নিয়ে তোলপাড়
শাসন-কাঠামো পর্যালোচনায় গবেষকদের মন্তব্য,
‘দেশে প্রধানমন্ত্রীর একনায়কতন্ত্র চলছে’

প্রোবনিউজ, ঢাকা: রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর এক সম্মিলিত পর্যবেক্ষণে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) বলেছে, দেশে এখন ‘প্রধানমন্ত্রির একনায়কতন্ত্র চলছে’। গতকাল টিআইবি এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ন্যাশনাল ইন্ট্রিগ্রিটি সিস্টেমের বিশ্লেষণ শীর্ষক টিআইবির এই প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন অধ্যাপক সালাউদ্দিন এম. আমিনুজ্জামান ও অধ্যাপক সুমাইয়া খায়ের। দেশের গণমাধ্যমগুলোতে আজ ব্যাপকভাবে এই প্রতিবেদনের তথ্য-উপাত্ত প্রকাশ করা হয়েছে।
দেশের প্রশাসন, বিচার বিভাগ, পুলিশ ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম পর্যালোচনা শেষে প্রতিবেদনে টিআইবি বলেছে, জবাবদিহিতামূলক শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাব বর্তমানে বড় বাধা হয়ে আছে বাংলাদেশে। রাজনীতিকরণ, স্বজনপ্রীতি ও দুর্নীতির শাস্তির অনুপস্থিতি রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানসমূহ তথা ন্যাশনাল ইন্টিগ্রিটিকে প্রভাবিত করছে।
টিআইবি গবেষণায় দেখেছে, মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়, নির্বাহি বিভাগ, পুলিশ বাহিনী ইত্যাদি সকল রাষ্ট্রীয় বিভাগে এখন সুশাসনের কার্যকারিতা নি¤œতম পর্যায়ে রয়েছে।
অন্যদিকে, দেশের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়সমূহ সংসদে কমই আলোচিত হচ্ছে। জনপ্রতিনিধিরা প্রায় দুর্নীতি এবং পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পৃষ্ঠপোষকতায় নিয়োজিত। সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী হিসেবে প্রধানমন্ত্রী সরকারের নির্বাহী বিভাগের ওপর একচ্ছত্র ক্ষমতার চর্চা করে থাকেন।
টিআইবির গবেষকরা এও বলেছেন, বিচারবিভাগের স্বাধীনতা এখনো অপূরণীয়ই থেকে গেছে দেশে। উচ্চআদালতের বিচারকদের সম্পদ বিবরণী প্রকাশ না করা বিচার ব্যবস্থার অন্যতম দুর্বলতা হয়ে আছে।
অন্যদিকে, জনপ্রশাসনের কর্মকর্তারা রাজনীতিকরণের শিকার। শুধু রাজনৈতিক বিবেচনায় বিপুল কর্মকর্তাকে ওএসডি করে রাখা হয়েছে। সরকারি কর্মকর্তাদের সততা ও নিয়োগ প্রক্রিয়াও আজ প্রশ্নবিদ্ধ। পদোন্নতির ব্যবস্থা সরকারি স্বেচ্ছাচারি সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। আর স্বচ্ছতার অভাব ও দলীয়করণে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো ভাবমূর্তির সংকটে রয়েছে। পুলিশ প্রশাসন এখন ব্যবহৃত হচ্ছে আইনের শাসন সমুন্নত রাখার পরিবর্তে রাজনৈতিক স্বার্থসিদ্ধির হাতিয়ার হিসেবে। ফলে এ বাহিনীর জবাবদিহিতা কাঠামো ভেঙ্গে পড়েছে।
নির্বাচন কমিশন তার বিশ্বাসযোগ্যতা প্রতিষ্ঠায় সফল হয়নি। কমিশনের সদস্যরা নির্দলীয় হওয়ার কথা থাকলেও তাদের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।
উল্লেখ্য, টিআইবির এই গবেষণা কাজের জন্য গঠিত উপদেষ্টা গ্রুপে ছিলেন ড. কামাল হোসেন, সৈয়দ মঞ্জুর এলাহী, রোকেয়া আফজাল রহমান, এ এস এম শাহজাহান, মাহফুজ আনাম, ড. দিলারা চৌধুরী, ব্যারিষ্টার মঞ্জুর হাসান ও ড. সি আবরার।
প্রোব/আপা/জাতীয়/১৫.০৫.২০১৪

১৫ মে ২০১৪ | জাতীয় | ১১:৫৯:০৯ | ১১:০১:২০

জাতীয়

 >  Last ›