A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

জঙ্গি রাকিব গ্রেপ্তার, সীমান্তে রেড অ্যালার্ট | Probe News

প্রোব নিউজ, ঢাকা: ত্রিশালে পুলিশ হত্যা করে তিন জেএমবি সদস্যকে ছিনিয়ে নেয়ার ছয় ঘণ্টার মাথায় এক জঙ্গিকে টাঙ্গাইল থেকে আটক করেছে পুলিশ।
বাকি দুই জঙ্গিসহ পুলিশের গাড়িতে হামলাকারীরা যাতে পালাতে না পারে, সেজন্য সীমান্তে জারি করা হয়েছে রেড অ্যালার্ট। তিন জঙ্গিকে ধরিয়ে দিতে ইতোমধ্যে ২ লাখ টাকা করে পুরস্কারও ঘোষণা করা হয়েছে।
 টাঙ্গাইলের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম জানান, রোববার বিকেলে মির্জাপুরের তক্তারচালা এলাকায় পায়ে হেঁটে যাওয়ার সময় সন্দেহ হওয়ায় একজনকে আটক করা হয়। পরে তাকে জেএমবি সদস্য রাকিবুল হাসান ওরফে হাফিজ মাহামুদ (৩৫) হিসাবে সনাক্ত করা হয়।
এর আগে টাঙ্গাইলের সখীপুর থেকে জাকারিয়া ওরফে মিলন (২৮) নামে আরেকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি ছিনতাই হওয়া তিন জঙ্গিকে বহনকারী গাড়ির চালক বলে জানিয়েছে পুলিশ। 
রোবাবর সকাল ১০টার দিকে ময়মনসিংয়ের ত্রিশালে পুলিশের প্রিজন ভ্যানে বোমা মেরে ও গুলি করে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত জেএমবি নেতা সালাউদ্দিন সালেহীন ওরফে সানি (৩৮), রাকিবুল হাসান ও যাবজ্জীবন কারাদন্ডপ্রাপ্ত মিজান ওরফে জাহিদুল ইসলাম ওরফে বোমারু মিজানকে (৩৫) ছিনিয়ে নেয়া হয়।
এ সময় প্রিজন ভ্যানে থাকা পুলিশ কনস্টেবল আতিকুল ইসলাম (৩০) নিহত হন, আহত হন আরো দুইজন পুলিশ সদস্য।
একটি মামলায় হাজিরার জন্য জেএমবির ওই তিন সদস্যকে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে ময়মনসিংহের আদালতে নেয়া হচ্ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।
এর কয়েক ঘণ্টা পর ময়মনসিংহ থেকে টাঙ্গাইল হয়ে পালানোর সময় হামলাকারী দলের একজন পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন।
টাঙ্গাইলের সখীপুর থানার ওসি মোখলেছুর রহমান জানান, দ্রুতগতির একটি মাইক্রোবাস সখীপুরের পৌর এলাকার কাছে প্রশিকা এলাকায় একটি অটোরিকশাকে ধাক্কা দেয়।
“ওই গাড়িতে পলাতক তিন জঙ্গি ছিল। দুর্ঘটনার পর আসামিরা দ্রুত স্থান ত্যাগ করে। আমরা সেখান থেকে গাড়ি চালক জাকারিয়াকে একটি পিস্তল, পাঁচ রাউন্ড গুলি ও ছয়টি ককটেলসহ গ্রেপ্তার করি।”

স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বিকালে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “বাকিরা যাতে পালাতে না পারে, সেজন্য সীমান্তে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। তাদের ধরতে আমরা সর্বশক্তি নিয়োগ করেছি। আশা করি শিগগিরই সবাইকে আটক কতা সম্ভব হবে।”
এ ধরনের আসামিদের আনা-নেয়ার ক্ষেত্রে আগামীতে নিরাপত্তা বাড়ানো হবে বলেও জানান তিনি।
এ ঘটনায় অতিরিক্ত সচিব নাজিম উদ্দিন চৌধুরীকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
ডিআইজি (ঢাকা রেঞ্জ) এস এম মাহাফুজুল হক নুরুজ্জামান, ডিআইজি প্রিজন (সদর দপ্তর) টিপু সুলতান ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপ সচিব খায়রুল কবির মেনন এই কমিটিতে সদস্য হিসাবে আছেন।
 প্রোব/আপা/জাতীয়/২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৪

২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ | জাতীয় | ১৯:২৬:৩০ | ১৬:০৮:১৬

জাতীয়

 >  Last ›