A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

ঢাবি’তে সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ | Probe News

ঢাবি’তে সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ

genocide00.jpgপ্রোবনিউজ, ঢাকা : গণহত্যা বা জেনোসাইড বিষয়ে সার্বিক ধারণা দিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো ডিপ্লোমা কোর্স চালু করতে যাচ্ছে ‘সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ’। বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীনে আগামী জুলাইয়ে ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি শুরু হবে। কোর্সের মেয়াদ তিন মাস। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) ভবনে অবস্থিত স্টাডি সেন্টারটি।
বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও গণতন্ত্র রক্ষার আন্দোলন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই শুরু হয়েছে। প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক-কর্মচারীদের ছিল সক্রিয় অংশগ্রহণ । আর তাদের আন্দোলনের সাহস নিয়েই সারা দেশে ছড়িয়ে গেছে স্বাধীনতা সংগ্রাম ও গণতন্ত্র রক্ষার আন্দোলন। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন ও ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা সংগ্রামের গণহত্যার ইতিহাস নিয়েই ‘সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ’ ডিপ্লোমা কোর্সটি চালু করেছে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ। এই ডিপ্লোমা কোর্সে পড়ানো হবে বাংলাদেশ ও বহির্বিশ্বের আলোচিত কিছু গণহত্যা সম্পর্কিত ধারণা ও গণহত্যার প্রকৃতি। স্বাধীনতা যুদ্ধে নানা ধরনের গণহত্যা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনমূলক অপরাধের গবেষণা-বিশ্লেষণও করবে সেন্টারটি। কোর্সটিতে আরো থাকছে বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক গণহত্যার বিষয়ে অধ্যয়ন, গবেষণা ও কেস-স্টাডি।
গণহত্যা বিষয়ে অধ্যয়নের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য সম্পর্কে সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজের পরিচালক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ প্রোবনিউজকে বলেন, ‘গণহত্যা বিষয়ে ধারণা দেয়া হবে যাতে করে ভবিষ্যতে আর কোন জেনোসাইড না হয়। বাংলাদেশে আর কোন জেনোসাইড নাও হতে পারে। সেক্ষেত্রে জনগণকে জেনোসাইড বিষয়ে সচেতন করা যেতে পারে।’
ডিপ্লোমা ইন জেনোসাইড স্টাডিজ প্রোগ্রামে বিভিন্ন পেশাজীবী, সাংবাদিক, আইনবিদ, সরকারি-বেসরকারি উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের গবেষকরা ভর্তি হতে পারবেন। নবীন বা মধ্যস্তরের সরকারি আমলা, সামরিক কর্মকর্তারাও ডিপ্লোমা কোর্সটি করতে পারবেন।
Untitled-1 copy.jpgস্টাডি সেন্টারে যেসব কোর্স পড়ানো হবে তা হল- জেনোসাইড স্টাডিজের পরিচয়, জাতি রাষ্ট্র ও গণহত্যার রাজনীতি, গণহত্যা ও গণসহিংসতা বিষয়ক কেসস্টাডি পর্যালোচনা এবং আর্ন্তজাতিক আইন, বিচার ও আদালত। এসব কোর্সে কিছু দুর্বলতা রয়েছে বলে জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী মইনুল হাসান। শেখ মুজিবুর রহমান হলের আবাসিক এই শিক্ষার্থীর অভিমত, ‘চারটি কোর্সের আউট-লাইন আমি দেখেছি। কোর্সগুলোতে দুর্বলতা রয়েছে। বাংলাদেশের গণহত্যা বিষয়ে ফিল্ড জরিপের মাধ্যমে অনুসন্ধান করা যেতে পারতো। মুক্তিযোদ্ধাদের জীবন ইতিহাসও পড়ার মধ্যে আসতে পারতো।’ রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে মাষ্টার্স পাস করার পর স্টাডি সেন্টারে ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থী জহিরুল ইসলাম জানান, ‘বিভাগে ভর্তি হওয়ার আগ্রহ আছে। মুক্তিযুদ্ধের গণহত্যা স্থানগুলো নিয়ে গবেষণা বিষয়ে কোর্সগুলো থাকলে আরো জমকালো হতো।’
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সেন্টারের পরিচালক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘কোন একটি বিভাগ চালু করতে বেশ সময় লাগে। ডিপ্লোমা পড়ানোর ক্ষেত্রে কোর্সগুলো একেবারে দুর্বল নয়।’ স্টাডি সেন্টারটি নিয়ে তিনি আরো বলেন, ‘৫-১০ বছর ডিপ্লোমা চলার পর সেন্টারের অধীনে মাষ্টার্স চালু করা যেতে পারে। আশা করি গণহত্যা অধ্যয়ণের প্রতি শিক্ষার্থীদের আগ্রহ রয়েছে।’
প্রোব/এহ/মুআ/জাতীয় ০৭.০৫.২০১৪

৭ মে ২০১৪ | জাতীয় | ১৬:৩৫:৪৬ | ২০:০৬:৪৬

জাতীয়

 >  Last ›