A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

ইরান সফরে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী: আলোচনার এজেন্ডায় সীমান্ত ও সিরিয়া ইস্যু | Probe News

ইরান সফরে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী: আলোচনার এজেন্ডায় সীমান্ত ও সিরিয়া ইস্যু


Pak PM.jpgপ্রোবনিউজ, ডেস্ক: তেহরান সফরে যাচ্ছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ। আগামী ১১ মে তিনি ইরান পৌঁছাবেন। সম্প্রতি পাক সীমান্ত থেকে ইরানের কয়েজন সীমান্তরক্ষীকে অপহরণের ঘটনায় দু দেশের মধ্যে সম্পর্কের যে অবনতি হয়েছে তা ঠিক করাই নওয়াজের এই সফরের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য বলে মনে করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি সিরিয়া এবং আন্তর্জাতিক আরো কিছু ইস্যু আলোচনার এজেন্ডায় থাকবে বলে জানা গেছে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আগামী ১১ ও ১২ মে দু’দিন তেহরানে থাকবেন নওয়াজ। মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, তেহরানে অবস্থানকালে নওয়াজ শরীফ ১১ মে ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানির সঙ্গে এবং ১২ মে সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ীর সঙ্গে সাক্ষাত করবেন। এসব সাক্ষাত অনুষ্ঠানে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক, আঞ্চলিক রাজনৈতিক অবস্থা এবং আরো বেশ কিছু প্রটোকল নিয়ে আলোচনা হবে।

গেলো ফেব্রুয়ারিতে সিস্তান-বালুচিস্তান প্রদেশ থেকে ইরানের পাঁচ সীমান্তরক্ষীকে অপহরণ করে পাকিস্তানের ভেতরে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে তেহরান-ইসলামাবাদ সম্পর্ক খুবই নীচে নেমে গেছে। এর মধ্যে চারজন গত এপ্রিল মাসে মুক্তি পেয়েছেন। বাকি একজনের ভাগ্যে কি ঘটেছে তা নিশ্চিত নয় তবে কর্মকর্তারা ধারণা করছেন, সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যা করেছে। এছাড়া, সিরিয়া ইস্যুতে ইরান ও সৌদি আরবের সঙ্গে ভারসাম্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে পাকিস্তান। সিরিয়া ইস্যুতে ইরান ও সৌদি আরবের অবস্থান সম্পূর্ণ বিপরীতে। আবার সৌদি আরবের সঙ্গে নওয়াজ শরীফ সরকারের সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ঠ। অন্যদিকে শক্তিশালী প্রতিবেশি হিসেবে ইরানের সঙ্গেও সম্পর্ক ধরে রাখা ইসলামাবাদের জন্য জরুরি। এ অবস্থায় প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের আসন্ন সফরকে পাকিস্তানের দিক দিয়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করা হচ্ছে।

সম্প্রতি পাক সীমান্ত থেকে ইরানের কয়েজন সীমান্তরক্ষীকে অপহরণের ঘটনায় দু দেশের মধ্যে সম্পর্কের যে অবনতি হয়েছে তা ঠিক করাই তার এ সফরের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য বলে মনে করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি সিরিয়া এবং আন্তর্জাতিক আরো কিছু ইস্যু আলোচনার এজেন্ডায় থাকবে বলে জানা গেছে। পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, আগামী ১১ ও ১২ মে দু’দিন ধরে চলবে নওয়াজ শরীফের এ সফর। মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, তেহরানে অবস্থানকালে নওয়াজ শরীফ ১১ মে ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানির সঙ্গে এবং ১২ মে সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ীর সঙ্গে সাক্ষাত করবেন। এসব সাক্ষাত অনুষ্ঠানে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক, আঞ্চলিক রাজনৈতিক অবস্থা এবং আরো বেশ কিছু প্রটোকল নিয়ে আলোচনা হবে।

গেলো ফেব্রুয়ারি মাসে সিস্তান-বালুচিস্তান প্রদেশ থেকে ইরানের পাঁচ সীমান্তরক্ষীকে অপহরণ করে পাকিস্তানের ভেতরে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে তেহরান-ইসলামাবাদ সম্পর্ক খুবই নীচে নেমে গেছে। এর মধ্যে চারজন গত এপ্রিল মাসে মুক্তি পেয়েছেন। বাকি একজনের ভাগ্যে কি ঘটেছে তা নিশ্চিত নয় তবে কর্মকর্তারা ধারণা করছেন, সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যা করেছে। এছাড়া, সিরিয়া ইস্যুতে ইরান ও সৌদি আরবের সঙ্গে ভারসাম্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে পাকিস্তান। সিরিয়া ইস্যুতে ইরান ও সৌদি আরবের অবস্থান সম্পূর্ণ বিপরীতে। আবার সৌদি আরবের সঙ্গে নওয়াজ শরীফ সরকারের সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ঠ। অন্যদিকে শক্তিশালী প্রতিবেশি হিসেবে ইরানের সঙ্গেও সম্পর্ক ধরে রাখা ইসলামাবাদের জন্য জরুরি। এ অবস্থায় প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের আসন্ন সফরকে পাকিস্তানের দিক দিয়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করা হচ্ছে।

প্রোব/বান/আন্তর্জাতিক ০৬.০৫.২০১৪

৬ মে ২০১৪ | আন্তর্জাতিক | ১২:৫২:১৬ | ১৬:০০:০৫

আন্তর্জাতিক

 >  Last ›