A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

বদোভূমির হত্যা নিয়ে বিজিপি-কংগ্রেসের লড়াই | Probe News

বদোভূমির হত্যা নিয়ে বিজিপি-কংগ্রেসের লড়াই


Assam_violence.jpgপ্রোবনিউজ, ডেস্ক: বদোভূমির হত্যাকান্ড নিয়েও এবার বিজিপি ও কংগ্রেসের মধ্যে জাতীয় রাজনীতির লড়াই শুরু হয়ে গেছে। পরস্পর একে অন্যের উপর অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছেন।
আসামের বদোভূমিতে জাতিগত সহিংসতায় ৩৬ ঘন্টায় এ পর্যন্ত ৩২ জন প্রাণ হারিয়েছেন। সরকারিভাবে একে জঙ্গি হানা আখ্যা দেয়া হলেও অভিযোগ উঠেছে, ২০০৮ ও ২০১২ সালের মতো এ বারও বদোভূমিতে গোষ্ঠী সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়েছে। ইউপিএ সরকারের বিদায় বেলায় এই ঘটনায় নতুন করে বিজেপির নিশানায় চলে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ। তিনি আসাম থেকেই রাজ্যসভার নির্বাচিত সাংসদ। বিজেপি প্রশ্ন তুলেছে, আসামে শান্তি-শৃঙ্খলা ফেরাতে মনমোহন কী করছেন?
পাল্টা আক্রমণে গিয়ে কংগ্রেস এই গোষ্ঠী সংঘর্ষের জন্য বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদীর উস্কানিমূলক বিবৃতি ও মেরুকরণের রাজনীতিকেই দায়ী করেছে।
আসাম সরকারের দাবি, বদোভূমিতে হত্যাকান্ডের নেপথ্যে রয়েছে বদো জঙ্গি সংগঠন এনডিএফবি (সংবিজিত)। তবে রোববার এনডিএফবি (সংবিজিত)-র প্রচার সম্পাদক এন ইসারা এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, বদোভূমির হত্যাকান্ডে তারা জড়িত নয়। তাদের অভিযোগ, কংগ্রেস ও তার জোট শরিক, বদোভূমির রাজনৈতিক দল বিপিএফ এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে।
শাসক জোট অর্থাৎ বদোভূমির হত্যাকান্ডের নেপথ্যে কংগ্রেসের জোট শরিক বিপিএফ-এর ভূমিকা রয়েছে বলে বিভিন্ন অ-বড়ো সংগঠনও অভিযোগ তুলেছে। তাঁদের বক্তব্য, কোকরাঝাড় কেন্দ্রের লোকসভা নির্বাচনে এবার বদো ও অ-বড়ো ভোটের মেরুকরণ হয়েছিল। এক দিকে বিপিএফ কংগ্রেসের সমর্থন নিয়ে প্রার্থী করেছে রাজ্যের সাবেক মন্ত্রী চন্দন ব্রহ্মকে। অন্যদিকে অ-বড়ো সংগঠনগুলির সমর্থনে প্রার্থী হয়েছেন প্রাক্তন আলফা জঙ্গি নেতা হীরা সরণিয়া। এই অ-বড়ো সংগঠনগুলি আবার পৃথক বড়ো রাজ্যের দাবির বিপক্ষে।
বদোভূমির হত্যাকান্ডের কারণ বের করতে রোববার জাতীয় তদন্ত সংস্থা (এনআইএ)-কে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এর আগে আসামের মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ’র পদত্যাগ দাবি করেছিল সবগুলো বিরোধীদলসহ সুশীল সমাজ। তবে তিনি পদত্যাগ করবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী কপিল সিব্বলের অভিযোগ, নির্বাচনে ফায়দা তুলতে বিজেপি গোটা দেশে সাম্প্রদায়িকতার বিষ বুনেছে। তারই ফলশ্রুতি এই ধরনের সংঘর্ষ। তাঁর অভিযোগ, “বিজেপি নেতারা আসামে উত্তেজনা ছড়াচ্ছে। এ জন্য জাল ছবি ব্যবহার করা হচ্ছে।” কংগ্রেস পাশে পেয়েছে জম্মু-কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাকে। তাঁর বক্তব্য, ‘মেরুকরণের রাজনীতি করলে এই ধরনের সংঘর্ষ ছড়াবেই।’
এর আগে মোদী পশ্চিমবঙ্গে গিয়ে বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী ফেরত পাঠানোর বিষয়ে কড়া মন্তব্য করেছিলেন। সে দিকেও আঙুল তুলছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব।
পাল্টা প্রশ্ন তুলছেন বিজেপি নেতৃত্ব। বিজেপি নেতা রবিশঙ্কর প্রসাদ আজ দিল্লিতে সাংবাদিক সম্মেলন করে প্রশ্ন তুলেছেন, আসামের সাংসদ হয়ে প্রধানমন্ত্রী কী করছেন? বদোভূমির হত্যাকান্ডের জন্য সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর দিকে আঙুল উঠানো হয়েছে।
রোববার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা শিবশঙ্কর মেনন গোটা পরিস্থিতি সম্পর্কে মনমোহনকে অবহিত করেন। প্রধানমন্ত্রীর দফতরের তরফে বিবৃতি জারি করে হত্যাকান্ডের নিন্দা করা হয়। শান্তি ফেরানোরও আবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী।
প্রোব/শামা/আর্ন্তজাতিক ০৪.০৫.২০১৪

৪ মে ২০১৪ | আন্তর্জাতিক | ১২:৫৩:৩২ | ২১:৩৮:৫১

আন্তর্জাতিক

 >  Last ›