A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

এবার আরএসএস ও বিশ্ব হিন্দু পরিষদ-এর বাংলাদেশ বিরোধী পুস্তিকা বিতরণ | Probe News

BD_IND.jpgপ্রোবনিউজ, ডেস্ক: বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ভারতের লোকসভা নির্বাচনের ষষ্ঠ ধাপের ভোটগ্রহণ। এদিন ভোট হবে মধ্য প্রদেশেও। আর এ উপলক্ষ্যে রাজ্যে বিলি করা প্রচারপত্রগুলোতে ব্যবহার করা হচ্ছে বিভিন্ন বিদ্বেষমূলক বক্তব্য। আর তাতে সবার আগে ঠাঁই পেয়েছে বাংলাদেশ এবং কাশ্মির ইস্যু।
এগুলোতে ব্যবহৃত অন্যতম শ্লোগান দুটি হল “ভারতকে তিন কোটি বাংলাদেশি মুসলিম অনুপ্রবেশকারী মুক্ত কর” এবং “বিশ্বাস ঘাতকদের কাছ থেকে কাশ্মিরকে রক্ষা কর।”
বিদ্বেষমূলক এসব বক্তব্যসমৃদ্ধ পুস্তিকাগুলো বিলি করছেন ডানপন্থী রাষ্ট্রীয় সোয়ামসেবক সংঘ আরএসএস এবং বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কর্মীরা। তবে বিতর্কিত এ ইস্যু নিয়ে এখন পর্যন্ত কোন মন্তব্য করেনি শিবরাজ চৌহানের নেতৃত্বাধীন রাজ্যের বিজেপি সরকার।
প্রচারপত্রগুলোতে কোন রাজনৈতিক দলের নাম কিংবা চিহ্ন না থাকলেও এতে রয়েছে বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদি এবং দলের সভাপতি রাজনাথ সিং এর বেশ কিছু ছবি।
জনগণের কাছে ভোট চেয়ে এতে আরও বলা হয়, ‘এবার না দিলে কখনোই নয়।’
বিজেপির নির্বাচনী প্রচারণায় বাংলাদেশি অভিবাসীদের নিয়ে উসকানিমূলক বক্তব্য আর নতুন কিছু নয়। এর আগে বিভিন্ন সমাবেশে এ নিয়ে উসকানিমূলক বক্তব্য রেখেছেন দলের শীর্ষ নেতারাও।
লোকসভা নির্বাচনের প্রচারণার ভারতে বাংলাদেশ সম্পর্কে প্রথম উস্কানিমূলক মন্তব্যটি আসে বিজেপির প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী নরেন্দ্র মোদির তরফ থেকে। ২২ ফেব্রুয়ারি আসামে নির্বাচনী প্রচারণায় মোদি বলেন, বাংলাদেশ থেকে যেসব হিন্দু অভিবাসী আসবে তাদের ভারতীয় সমাজে জায়গা করে দিতে হবে। এর কারণ হিসেবে বলা হয়, তারা নির্যাতিত হয়ে আসছে। এছাড়া বিভিন্ন সমাবেশে বাংলাদেশিদের আসামের জনগণের বেকারত্বের কারণ হিসেবেও উল্লেখ করা হয়।
৩০ মার্চ বিজেপির সভাপতি রাজনাথ আসামের করিমগঞ্জের আরেক জনসভায় বলেন, ১৯৭১ সালের পর যারা বাংলাদেশ থেকে এসেছে সে অবৈধদের খুঁজে বের করে ভারত থেকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিতে হবে।
মোদি ও রাজনাথের পর গত ১৮ এপ্রিল সবচেয়ে বিতর্কিত মন্তব্যটি করেন, বিজেপির আরেক নীতিনির্ধারক সুব্রানিয়াম স্বামী। আসামের রাজধানী গুয়াহাটিতে এক জনসভায় তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের জনসংখ্যার প্রায় এক তৃতীয়াংশ এখন ভারতে বসবাস করে, এদের বাংলাদেশে যদি ফেরত না নেয়া হয় তা হলে তাদের থাকার জায়গা করে দিতে বাংলাদেশ থেকে তার ভূমির এক তৃতীয়াংশ নিয়ে নেয়া উচিত।
ভারতের লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বিভিন্ন জনমত জরিপে এখন পর্যন্ত বিপুল আসনে এগিয়ে আছে বিজেপি। আর প্রধানমন্ত্রী হিসেবেও নরেন্দ্র মোদির পাল্লাই ভারি।
প্রোব/ফাউ/ডেস্ক/২১.০৪.২০১৪

২১ এপ্রিল ২০১৪ | জাতীয় | ২১:৪৯:০০ | ২১:২৫:২৬

জাতীয়

 >  Last ›