A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

রামেকে সাংবাদিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ | Probe News

RAMEC Photo.JPGপ্রোবনিউজ, রাজশাহী: রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে সোমবার দুপুরে নগরীতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে স্থানীয় সাংবাদিকরা । নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে এই কর্মসূচি থেকে হামলাকারীদের শাস্তির দাবি জানানো হয়।

গুরুতর আহত যমুনা টেলিভিশনের ক্যামেরাপারসন রাসেল মাহমুদকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রাতে ঢাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সোমবার সকাল ছয়টায় তাকে অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। বর্তমানে তিনি সেখানকার ওসিসিতে চিকিত্সাধীন রয়েছেন।

রাজশাহী টেলিভিশন রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব অপু জানান, হামলার ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এদিকে রোববার রাতের ঘটনার পর থেকেই রামেক হাসপাতালে অঘোষিত কর্মবিরতি পালন করছেন ইন্টার্নি চিকিত্সকরা। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন ভর্তিকৃত শতশত রোগী। রোববার রাত থেকে সোমবার ভোর পর্যন্ত হাসপাতালের ১০, ২৪ ও ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তিকৃত তিনজন রোগী বিনা চিকিত্সায় মারা গেছেন বলে স্বজনেরা অভিযোগ করেছেন।

উল্লেখ্য, রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে হাসপাতালের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিত্সকদের অবহেলায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে ইন্টার্নি চিকিত্সকরা রোগীর স্বজনদের বেধড়ক পেটায়। এ সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে ইন্টার্নি চিকিত্সকরা দলবেধে কর্তব্যরত সাংবাদিকের ওপরও বর্বর হামলা চালায়। এ সময় তারা সাংবাদিকদের ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে ভাঙচুর করে। ভাঙচুর করা হয় বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন রাজশাহী শাখার সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদসহ অন্যান্য সাংবাদিকের ক্যামেরা।

ইন্টার্ন চিকিত্সকদের হামলায় যমুনা টেলিভিশনের ক্যামেরাম্যান তারেক মাহমুদ রাসেল, চ্যানেল ২৪ এর ক্যামেরাম্যান রায়হান, রিপোর্টার আবরার শাইর, দৈনিক সোনার দেশের সালাউদ্দিন, মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের মাসুদ, ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভির জাফর ইকবাল লিটন, এটিএন নিউজের রুবেলসহ ১০ সাংবাদিক আহত হন।

সাংবাদিকদের অভিযোগ, হামলার সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত পুলিশ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে।

তাত্ক্ষণিক রাজশাহীতে কর্মরত সাংবাদিকরা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের গেটে বিক্ষোভ করেন। এরপর রাত ১২টার দিকে হাসপাতাল পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা, সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন ও মহানগর পুলিশ কমিশনার ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান ঘটনাস্থলে যান। সাংবাদিকদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে রাতেই বোয়ালিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সায়েদুর রহমান ভূইয়াকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠান।

এছাড়া সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা আজ সোমবারের মধ্যে হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় তদন্ত কমিটি গঠন করে অভিযুক্ত ইন্টার্নি চিকিত্সকদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন। অন্যথায় কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার হুমকি দিয়েছেন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।
প্রোব/পি/জাতীয়/২১.০৪.২০১৪

২১ এপ্রিল ২০১৪ | জাতীয় | ১৭:১৭:২১ | ১৯:৩৩:২৪

জাতীয়

 >  Last ›