A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

'শেখ জামালের নাম থাকায় ধানমন্ডি মাঠ অবমুক্ত করছে না প্রশাসন' | Probe News

Ikbal1

'শেখ জামালের নাম থাকায় ধানমন্ডি মাঠ অবমুক্ত করছে না প্রশাসন'

প্রোবনিউজ, ঢাকা : ব্যক্তিগত আক্রমণ করে, মামলা আর হুমকি দিয়ে পরিবেশবাদীদের থামিয়ে রাখা যাবে না। ধানমন্ডি খেলার মাঠে সাধারণ জনগণের প্রবেশ নিশ্চিত করতে আমরা আন্দোলন করছি। এ আন্দোলন জনস্বার্থে। ক্লাবের সঙ্গে শখে জামালরে নাম জড়তি থাকায় প্রশাসন ধানমন্ডি মাঠ অবমুক্ত করছে না। শনিবার বিকালে ধানমন্ডির একটি রেস্টুরেন্টে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেছেন পরিবেশবাদী সংগঠনের নেতারা।

ধানমন্ডি খেলার মাঠ রক্ষা আন্দোলনের সর্বশেষ পরিস্থিতি জানাতে গিয়ে বক্তারা অভিযোগ করেন, আদালতের নির্দেশনা থাকার পরও ধানমন্ডি মাঠ অবমুক্ত না করার পেছনে সরকারের হাত রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ভাইয়ের নাম ব্যবহার করে কিছু ব্যবসায়ী মাঠ দখল করে নির্মাণ কাজ করছে। ধানমন্ডি ক্লাবের সভাপতি মঞ্জুর কাদের আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে আজেবাজে কথা বলছেন, ব্যক্তিগত আক্রমণ করছেন। ক্লাব কর্তৃপক্ষ পরিবেশবাদী চার নেতাসহ দুই শতাধিক কর্মীকে আসামী করে মামলা করেছে। সংবাদ সম্মেলনে মাঠ দখলদারদের হুঁশিয়ার করে বলা হয়, মামলা দিয়ে আমাদের আন্দোলন থামানো যাবে না।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)’র যুগ্ম সম্পাদক স্থপতি ইকবাল হাবিব। এতে উপস্থিত ছিলেন, অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী, গণস্বাস্থ্যের নির্বাহী প্রধান ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, নগর পরিকল্পনাবিদ অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) প্রধান নির্বাহী ডা. আব্দুল মতিন, স্থপতি এম আবু সাঈদ আহমেদ, এ্যাডভোকেট শাহদীন মালিক, স্থপতি সালমা শফি, স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন, জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক গাজী আশরাফ হোসেন লিপু এবং ব্যারিস্টার সারা হোসেন।

অধ্যাপক জামিরুল রেজা বলেছেন, ‘ধানমন্ডি মাঠ জনগণের সম্পদ। এখানে জনগণ গেলে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হবে কেন, বরং আদালতের রায় অবমাননার জন্য ক্লাব কর্তৃপক্ষের নামে মামলা হতে পারে।’ তিনি আরো বলেন, ‘ক্লাব কর্তৃপক্ষ সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছে মাঠে এলাকার ছেলে-মেয়েদের খেলতে দেবে। ক্লাবে সদস্য হতে চাইলে বিপুল টাকা খরচ করা লাগবে।’ সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা কোন ব্যক্তিগত বিষয় নয়। এখানে ব্যক্তিগত আক্রমণ চলে না।’

স্থপতি ইকবাল হাবিব সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছেন, ‘আমি ধানমন্ডি এলাকার লেক, বঙ্গবন্ধুর বাড়ি সংস্করণের কাজ করেছি। হাতিরঝিলে সরকারের সঙ্গে চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করেছি। এখানে আমার কাজের স্বচ্ছতা না থাকলে আইনের অধীনে যেতে প্রস্তুত। কিন্তু আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা কথা বলে বিভ্রান্ত সৃষ্টি করার কোন এখতিয়ার তাদের নেই।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমরা জনগণের জন্য কাজ করছি। আমাদেরকে মিথ্যা অপবাদ, ব্যক্তিগত আক্রমণ, আর হুমকি দিয়ে থামিয়ে রাখতে পারবেন না। আমরা জনগণের জন্য আন্দোলন করে যাবো।’

ব্যারিস্টার সারা হোসেন সাংবাদিকদের জানান, ‘আগামীকাল রোববার মাঠের ব্যাপারে পুনরায় আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করবেন।’

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘ধানমন্ডি মাঠের ক্ষেত্রে প্রভাবশালীরা পুকুর চুরি করেছে। দিনের দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর ভাইয়ের নাম ব্যবহার করে বাণিজ্য করছে ধানমন্ডি শেখ জামাল ক্লাব কর্তৃপক্ষ।’

এ্যাডভোকেট শাহদীন মালিক বলেন, ‘ মাঠ অবৈধ দখল করে শেখ জামালের নাম ব্যবহার করায় প্রধানমন্ত্রীরও মানহানি হয়েছে। তারা বঙ্গবন্ধুর পরিবারের নাম ব্যবহার করে পুকুর চুরি থেকে সমুদ্র চুরিও করতে পারে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ ধানমন্ডি ক্লাবকে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দিন।’

‘মাঠ উন্নয়নের কারণে মঞ্জুর কাদেরকে জাতীয় পুরস্কারের জন্য বাফুফের পক্ষ থেকে মনোনয়ন দেবেন’ বাফুফে সভাপতি সাবেক ফুটবলার কাজী সালাহউদ্দিন আহমের এই বক্তব্য প্রসঙ্গে স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন বলেন, ‘মাঠকে অবৈধ দখল করে ক্লাব, ভবন নির্মাণ ও এলাকাবাসীর অধিকার লঙ্ঘনের জন্য পুরস্কার ঘোষণা করলে আমার কিছু বলার নেই।’ সরকারের মন্ত্রীরা ও সচেতন নাগরিকরা দখলদারদের পাশে থেকে কাজ করার নিন্দা জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা), বাংলাদেশ স্থপতি ইনস্টিটিউট (আইএবি), বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সমিতি (বেলা), সুজনসহ ৫০ নাগরিক, সামাজিক ও পরিবেশবাদী সংগঠন।
প্রোব/এহ/খোআ/১৯.০৪.২০১৪

১৯ এপ্রিল ২০১৪ | জাতীয় | ১৭:০১:৪১ | ২৩:৩০:৫২

জাতীয়

 >  Last ›