A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

টোকাইদের নয়, ধানমন্ডি মাঠ বড় লোকদের : কাদের | Probe News

DSC06425copy.jpg

টোকাইদের নয়, ধানমন্ডি মাঠ বড় লোকদের : কাদের

প্রোবনিউজ, ঢাকা : ধানমন্ডি শেখ জামাল ক্লাব পরিবেশবাদীদের ভাড়া করা টোকাইদের জন্য নয়। এই মাঠ ধানমন্ডির এলিট শ্রেণীর মানুষের। এখানে পরিবেশবাদীদের কোন এখতিয়ার নেই। শনিবার লে. শেখ জামাল ক্লাবের মাঠে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে পরিবেশবাদীদের উদ্দেশ্য করে এসব কথা বলেছেন ক্লাবের সভাপতি লে. মঞ্জুর কাদের।

ধানমন্ডি খেলার মাঠে মেলা, গো-চারণ ভূমি হিসেবে ব্যবহার না করতে পেরে হিংসায় করছে পরিবেশবাদীরা। এখানে টোকাই, গাঁজাখোর ও সন্ত্রাসীদের জায়গা নয়। ধানমন্ডি খেলার মাঠ এলাকার বাসিন্দাদেরই থাকছে। এখানে ধানমন্ডি ছেলেরাই খেলার সুযোগ পাবে। পরিবেশবাদীদের আন্দোলনের বিরুধিতা করে সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা এসব কথা বলেছেন।

সকাল ১১ টায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন, ধানমন্ডি শেখ জামাল ক্লাবের সভাপতি মঞ্জুর কাদের, ধানমন্ডি শেখ জামাল ক্লাবের চেয়ারম্যান শওকত আজিজ রাসেল, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কর্মকর্তা তানভীর মাজহারুল ইসলাম তান্না, অলিম্পিক ফেডারেশনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহেদ রেজা, ক্লাবের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আকবর আলী ও নারী ফুটবলের পরিচালক মাহফুজা আক্তার কিরণসহ আরো অনেকে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিসিবি সভাপতি বলেছেন, ‘এই মাঠে অনেক খেলোয়াড় তৈরি হয়েছে। এই ক্লাবের খেলোয়াড়েরা কলকাতায়, নেপালে ভালো খেলে সুনাম অর্জন করেছে। এই ক্লাব খুব অল্প সময়ের মধ্যে বিকশিত হবে।’ পরিবেশবাদীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘মানুষদের বিভ্রান্ত করবেন না। এটা ধানমন্ডি এলাকার মাঠ এখানে স্থানীয় ছেলেরাই খেলবে।’ পাপন আরো বলেন, ‘ভালো কাজে বাঁধা আসবেই, ভালো কাজ করলে ক্লাবের সঙ্গে থাকবো।’

বাফুফে’র সভাপতি বলেছেন, ‘ভাবতেই পারছি না। এটা লিভারপুল না বার্সেলোনা। সুন্দর ক্লাব করার জন্য আগামী বছর ক্লাব সভাপতিকে পুরস্কৃত করা হবে। পরিবেশবাদীরা এই মাঠের বিরোধিতা করছে এটা ঠিক নয়। এখানে ধানমন্ডি এলাকার সন্তানেরা খেলার সুযোগ পাবে।’

ধানমন্ডি শেখ জামাল ক্লাব সভাপতি মঞ্জুর কাদের বলেন, ‘এই মাঠে এক সময় গরুর বাজার, ফলের মেলা, গাঁজাখোরদের আশ্রয় ছিল। কিন্তু বর্তমানে এখানে খেলার পরিবেশ ফিরে এসেছে। তাই পরিবেশবাদিরা আমাদের পেছনে ওঠে পড়ে লেগেছে।’ পরিবেশবাদীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেছেন, ‘ ধানমন্ডি বড়লোকদের এলাকা, এখানে কেবল বড়লোকদের ছেলেরা খেলার সুযোগ পাবে। পরিবেশবাদীদের ভাড়া করা টোকাইরা এই মাঠে খেলার সুযোগ পাবে না।’
প্রসঙ্গত, শুক্রবার খেলার মাঠ রক্ষার দাবিতে পরিবেশবাদি নেতাকর্মীরা ধানমন্ডি মাঠে প্রবেশ করে এবং অবস্থান নেয়। তারা মাঠে অবৈধ স্থাপনা নিমার্ণ না করার জন্য এবং মাঠটি উন্মুক্ত করে দেয়ার জন্য ক্লাবের উদ্যোক্তাদের আহবান জানান। ঘন্টাখানেক পর তারা মাঠ ছেড়ে চলে যায়। জানা গেছে এর পরপরই ক্লাবের সেক্রেটারি আরিফুর রহমান বাদী হয়ে স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন, স্থপতি ইকবাল হাবিব, স্থপতি সালমা শফি এবং নূরুনাহার ডানাসহ অজ্ঞাতনামা অনেককে আসামী করে ধানমন্ডি থানায় একটি মামলা করেন।

ধানমন্ডি খেলার মাঠ দখল করে ছয় তলা ভবন নির্মাণ করছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব প্রাইভেট লিমিটেড। মাঠের জমিতে নিমার্ণাধীন ভবনে থাকবে অডিটোরিয়াম। যা বিয়ে জন্মদিনসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের জন্য ভাড়া দেয়া হবে। ভবনে আরো রয়েছে খেলোয়াড়দের জন্য ডরমেটোরি, কনফারেন্স রুম, ক্যান্টিন, পরিচালকদের বোর্ড রুম, টেবিল টেনিস খেলার ব্যবস্থা, আন্ডারগ্রাউন্ড পাকিং, সুইমিং পুল, লন টেনিস ও ব্যাডমিন্টন কোর্ট।

জানা গেছে, মাঠ দখল ও ভবন নির্মাণের সঙ্গে জড়িত রয়েছে ক্লাবের নির্বাহী ও পরিচালনা পরিষদের সভাপতি মঞ্জুর কাদের। ক্লাবের সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান শাহ আলম, নিটোল গ্রুপের চেয়ারম্যান মতলুব আহমেদ, রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান এল এ মুকুল ও পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ হাশেমের ছেলে শওকত আজিজ রাসেল। প্রকৃতপক্ষে এই মাঠের ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব ঢাকা সিটি করপোরেশনের আর ব্যবহার করার সম্পূর্ণ অধিকার এলাকাবাসী।


প্রোব/এহ/ জাতীয় ১৮.০৪.২০১৪

১৯ এপ্রিল ২০১৪ | জাতীয় | ১৩:০৪:৩২ | ২৩:২৪:৪৭

সম্পর্কিত আরো খবর

জাতীয়

 >  Last ›