A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

মিঠুনের টানে সভায় এলেন মমতা | Probe News

Mithun__Mamata.jpgপ্রোবনিউজ, ডেস্ক: মালদহে কোনও জনসভা করার কথাই ছিল না পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের । তাই জেলা প্রশাসনেরও মুখ্যমন্ত্রীর জনসভার জন্য প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা নিয়ে ছিল না আগাম কোনও প্রস্তুতি। তবে মমতা এ দিন এদিন বিকেল সাড়ে ৪ টে নাগাদ দক্ষিণ দিনাজপুর সফর সেরে মালদহ বিমনবন্দরে হেলিকপ্টার থেকে নেমে শুনতে পান, মিঠুন চক্রবর্তী ও মুকুল রায় পুরাতন মালদহের তাঁতিপাড়ায় জনসভা করছেন। তখন হোটেলে না গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী সোজা তাঁতিপাড়া জনসভায় হাজির হন। তাতে হকচকিয়ে যায় জেলা পুলিশ।
মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “আজ আমার দক্ষিণ দিনাজপুরে সভা ছিল। মালদহে সভা করার কোনও কথা ছিল না। কিন্তু মালদহে নেমে যখন শুনলাম মিঠুন ও মুকুলরা পুরাতন মালদহ সভা করছে তখন ওদের সঙ্গে দেখা করতে এখানে চলে এলাম।” এদিন তাঁতিপাড়া জনভায় মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেন, “এ বার দার্জিলিংয়ে তৃণমূল জিতবে। বিজেপি যে বাংলা ভাগ করার চক্রান্ত করছে সেটা রুখব।”
এদিন রাজ্যসভার সাংসদ মিঠুন বলেন, “সমীক্ষা বলছে তৃণমূলের দিকে পাল্লা ভারী। কাটাকুটির ভোটের খেলায় খেলবেন না। ভোট কাটাকুটিতে নষ্ট করবেন না। এতে পশ্চিমবঙ্গের ভালো হবে না। তৃণমূলের প্রার্থীদের যত বেশি করে জেতাবেন, তত বেশি দিদি দিল্লি থেকে বাংলার জন্য টাকা আনতে পারবেন। বোতাম টিপবেন এখানে সরকার গড়ব ওখানে।”
এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় আগাম কাউকে না জানিয়ে হুট করে পুরাতন মালদহের তাঁতিপাড়ার জনসভায় হাজির হওয়ায় সমস্যায় পড়ে প্রশাসন। মিঠুনের হেলিকপ্টারও জেলা ক্রীড়া সংস্থার মাঠে না নেমে মালদহ বিমানবন্দরে নামে। ঠিক ছিল, মিঠুনের হেলিকপ্টার বিকেল সাড়ে চারটের সময় জেলা ক্রীড়া সংস্থার মাঠে নামবে। সেই মতো রাজ্যের দুই মন্ত্রী সাবিত্রী মিত্র, কৃষ্ণেন্দু চৌধুরী ও তৃণমূলের একাধিক কাউন্সিলর সেখানে হাজির হন মিঠুনকে স্বাগত জানাতে। হেলিকপ্টার আসছে ভেবে পুলিশের পক্ষ থেকে ধোঁয়া জ্বালানো হয়। কিন্তু হেলিকপ্টার আর নামছে না। মন্ত্রী থেকে শুরু করে পুলিশ কর্তারা সবাই উপরের দিকে তাকিয়ে থাকেন অনেকক্ষণ। কিছুক্ষণ পরই খবর আসে মিঠুনের হেলিকপ্টার মালদহ বিমানবন্দরে নেমেছে। মন্ত্রী, পুলিশের নিরাপত্তার দায়িত্বপ্রাপ্তরা গাড়ি নিয়ে তখন বিমানবন্দরের দিকে ছুট লাগান। সবাই যখন বিমানবন্দের ঢুকছেন তখন মুকুল রায় মিঠুনকে সঙ্গে নিয়ে বিমানবন্দর থেকে গাড়িতে করে বেরিয়ে আসছেন। বিকেল সাড়ে পাঁচটায় মিঠুনকে সঙ্গে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী তাঁতিপাড়া সভা শেষ করে নারায়ণপুর হোটেলের উদ্দেশ্য রওনা হওয়ার পর পুলিশ কর্তারা হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন।
প্রোব/বান/আন্তর্জাতিক ১৭.০৪.২০১৪

১৭ এপ্রিল ২০১৪ | আন্তর্জাতিক | ১৯:৩৯:২০ | ১১:২০:২১

আন্তর্জাতিক

 >  Last ›