A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

খালেদার আবেদনের শুনানি বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মুলতবি | Probe News

প্রোবনিউজ, ঢাকা: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে করা আবেদনের শুনানি শুরু হয়েছে। শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মামলার কার্যক্রম মুলতবি করা হয়েছে।

বিচারপতি বোরহান উদ্দিন ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে বুধবার দুপুর আড়াইটা থেকে প্রায় পৌনে দুই ঘণ্টাব্যাপী প্রথম দিনের মতো শুনানি হয়।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম অপরদিকে, খালেদার পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন ও এ জে মোহাম্মদ আলী।
এর আগে গত ১৩ এপ্রিল নিম্ন আদালতের অভিযোগ গঠন বাতিল চেয়ে খালেদা জিয়ার পক্ষে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন হাইকোর্টে এই আবেদনটি করেন।

গত ১৯ মার্চ বুধবার মহানগর দায়রা জজ বিশেষ আদালত-৩ এর বিচারক বাসুদেব রায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ নয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আদেশ দেন।
আগামী ২১ এপ্রিল এ বিষয়ে সাক্ষ্য নেয়ার দিন ধার্য করে।

আইনজীবী খোকন বলেন, “সরকার দুদককে ব্যবহার করে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে এ মামলা করেছে। দুদক এ মামলায় যে অভিযোগ করেছে তা সত্য নয়।”

এছাড়া তিনি বলেন, “বিচারিক আদালত খালেদা জিয়ার আবেদন না শুনেই এজলাসের বাইরে গিয়ে অভিযোগ গঠন করেছে। যা আইনের পরিপন্থী।”

ক্ষমতার অপব্যবহার করে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ আনা হয়েছে আসামিদের বিরুদ্ধে। এজাহারে বলা হয়, ২০০৫ সালে কাকরাইলে সুরাইয়া খানম নামে এক মহিলার কাছ থেকে ‘শহীদ জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট’এর নামে ৪২ কাঠা জমি কেনা হয়। তবে জমির দামের চেয়ে অতিরিক্ত এক কোটি ২৪ লাখ ৯৩ হাজার টাকা জমির মালিককে দেয়া হয়েছে, যা কাগজপত্রে উল্লেখ করা হয়। এই টাকার বৈধ কোনো উৎস ট্রাস্ট দেখাতে পারেনি।

২০১১ সালের ৮ আগস্ট জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে অর্থ লেনদেনের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়াসহ চারজনের নামে তেজগাঁও থানায় মামলা করেছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক হারুনুর রশিদ। এ মামলায় খালেদা জিয়াসহ চারজনকে অভিযুক্ত করে ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক হারুনুর রশিদ খান।

অন্যদিকে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ২০১০ সালের ৫ আগস্ট বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় দুদক। অভিযোগপত্র দেয়ার পর ২৬টি ধার্য তারিখ পার হলেও আইনি মারপ্যাঁচে খালেদা জিয়াসহ অপর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি অনুষ্ঠিত হয়নি।

সর্বশেষ এ মামলায় খালেদা জিয়া গত বছরের ১১ অক্টোবর আদালতে হাজিরা দেন। ২০০৮ সালের ৩ জুলাই দুর্নীতি দমন কমিশন রমনা থানায় জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে অনিয়মের অভিযোগে এ মামলাটি করে। এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে মোট ৩৬ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।
প্রোব/ খোআ/ জাতীয়/ ১৬. ০৪. ২০১৪

১৬ এপ্রিল ২০১৪ | জাতীয় | ১৮:৫৪:১৩ | ১৩:৩৩:৩১

জাতীয়

 >  Last ›