A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

বঙ্গাব্দ প্রচলনে নানা মত | Probe News

Pohela_boishakh_10.jpgপ্রোবনিউজ, ডেস্ক: বঙ্গাব্দ প্রচলনের সঙ্গে জড়িয়ে আছে সম্রাট আকবরের নাম। যদিও সরাসরি বাংলা সন প্রবর্তনে তাঁর প্রত্যক্ষ কোনো ভূমিকা নেই। তবে সম্রাট আকবর সরাসরি প্রচলিত বঙ্গাব্দ প্রবর্তন না করলেও ‘তারিখ-ই-ইলাহির’ আদর্শে স্থানীয়ভাবে পণ্ডিতেরা বাংলা সন প্রচলন করেছিলেন। পূর্বভারতের নানা রাজ্যে ‘তারিখ-ই-ইলাহির’ আদর্শে স্থানীয় সন প্রচলিত হয়েছিল।
তবে বঙ্গাব্দের জন্মকথায় পাওয়া যায় রাজা শশাঙ্কের নামও। যদিও বাংলা সন মেষরাশিতে সূর্যের প্রবেশের সাথে বর্ষারম্ভ গণনা করা হতো তবে অন্য ফসলি সনসমূহ স্থানীয় কোন গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক ঘটনাকে বর্ষারম্ভ গণ্য করতো। সেকারণেই
অনেক পণ্ডিত মনে করেন রাজা শশাঙ্কই হলেন বঙ্গাব্দের মূল প্রবর্তক। এদের মতে শশাঙ্কের রাজ্যাভিষেকের দিন থেকেই এই অব্দ চালু হয়েছিল। এ বক্তব্যের প্রধান প্রবক্তা সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় উল্লেখ করেছিলেন যে ৫৯৪ খ্রিস্টাব্দের ১২ এপ্রিল, ১লা বৈশাখ, সোমবার বঙ্গাব্দের গণনা শুরু হয়।
মোটামুটি হিসেবে দেখা যায় যে বাংলা সনের প্রচলন ঘটেছিল ১২০১-২ খ্রিস্টাব্দ থেকে অর্থাৎ বখতিয়ার খিলজীর হাতে বাংলার রাজা লক্ষণ সেনের পরাজয় কাল থেকে। বলা হয়ে থাকে ঐতিহাসিক এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় পঞ্জিকাকারগণ এই সনের প্রচলন করেন।
বিশ্ববিখ্যাত পন্ডিত সিলভ্যাঁ লেভি বহুদিন পূর্বে শুধুমাত্র ধ্বনিগত মিল সনে’র ভিত্তিতে বলেছিলেন যে, এই তিব্বত রাজ ৫৯৫ খ্রিস্টাব্দে বাংলা সন প্রচলন করেছিলেন। তবে বাংলাদেশে এমন কোনো প্রতাপশালী তিব্বতি রাজার শাসনের উল্লেখ নেই যার নামে বাংলা সন চালু হতে পারে। এটি অনুমান মাত্র।

তবে সব থেকে নির্ভরযোগ্য মত হলো, ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দে আকবরের রাজ্যরোহণের সময় হিজরি সন ছিলো ৯৬৩। আর এ বছর থেকেই অর্থাৎ ৯৬৩ হিজরি সনকেই সৌরসনে পরিবর্তিত করে বঙ্গাব্দ বা বাংলা সনের সৃষ্টি হয়। সহজ কথায় এই সন থেকেই বাংলা নতুন বছরের উৎপত্তি।
প্রোব/বান/জাতীয় ১৩.০৪.২০১৪

১৩ এপ্রিল ২০১৪ | জাতীয় | ২১:৩৫:৫২ | ১৫:৫৯:০৩

জাতীয়

 >  Last ›