A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

বার্সার পরাজয়, সেমিফাইনালে অ্যাথলেটিকো | Probe News

barca bg769.jpgপ্রোবনিউজ, ঢাকা : বারের কাছে পায়ে বল পেয়েছিলেন আর্জেন্টাইন সুপার স্টার মেসি। তবে ভাগ্য বোধহয় সঙ্গে ছিলো না। বল জালে জড়াতে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। ব্যর্থ মেসিকে সেই বলটি বাড়িয়ে দিয়েছিলেন নেইমার। সেদিক থেকে তিনি হয়তো খানিকটা শান্ত্বনা পাবেন। তবে খেলা শেষে ফলাফলটা তাতে পাল্টায়নি। স্প্যানিশ লিগের অন্যতম সেরা ক্লাব অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের কাছে ১-০ তে পরাজয়ের গ্লানিটা তাই রয়ে গেলো বার্সার জন্য। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগে বার্সেলোনার বিপক্ষে ৪০ বছর পর জয় পেয়েছে অ্যাথলেটিকো।
ন্যু ক্যাম্পে বার্সেলোনার বিপক্ষে প্রথম লেগের ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হয়েছিল। দুই লেগ মিলিয়ে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় শেষ চারে উঠে গেল আথলেতিকো। ১৯৭৪ সালের পর এই প্রথম কোনো ইউরোপীয় প্রতিযোগিতার শেষ চারের পৌঁছাল চলতি মৌসুমের চমক জাগানো ডেভিড ভিয়ার দল।
নিজেদের মাঠে প্রথমার্ধের পাঁচ মিনিটেই গ্যালারিতে দর্শকদের উৎসবে মাতিয়ে এগিয়ে যায় আথলেতিকো। বার্সার সাবেক স্ট্রাইকার ডেভিড ভিয়ার ক্রস আদ্রিয়ান লোপেজকে খুঁজে পায়। তার অসাধারণ হেড বারে বাঁধা থেকে বল পেয়ে জালে জড়াতে ভুল করেননি ফরোয়ার্ড কালদেরনে কোকে। অসাধারণ ভলির শটে জাল কেঁপে ওঠে বার্সেলোনার। দর্শক গ্যালারিতে তীব্র উত্তেজনা আর কাতলানবাসীদের মধ্যে জয় নিয়ে শঙ্কা। কিন্তু বার্সেলোনা প্রথমার্ধে আর ছন্দে ফিরতে পারলো না। বরং স্বাগতিকরা সুযোগ মিস করেছে। ম্যাচের ১১ মিনিটে ভিয়ার শট গোলপোস্ট লেগে ফিরে আসে। এর আট মিনিট পর ক্রসবার হতাশায় পোড়েন এই স্পেন স্ট্রাইকার। এরপর খেলার চিত্র পাল্টে যায়। আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে বার্সেলোনার রক্ষণভাগের পরীক্ষা নিলেও বেশির ভাগ সময় নিজেদের অংশে ছিল স্বাগতিকরা। আথলেতিকোর জমাট সেই রক্ষণভাগ ভাঙা সম্ভব হয়নি লিওনেল মেসি, নেইমারদের।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই আক্রমণ শুরু করে বার্সেলোনা। কিন্তু গোলে শট নেয়ার মুহূর্তে নেইমারের পা থেকে বল সরিয়ে দেন অ্যাথলেতিকোর গোলরক্ষক করতোয়া। বলটা মেসির পায়ে গেলেও গোল করতে পারেননি বার্সেলোনার সবচেয়ে বড় তারকা। দ্বিতীয়ার্ধের ৬০ মিনিটে দানি আলভেসের ক্রসে জাভি ঠিকভাবে মাথা ছোঁয়াতে না পারায় সমতা ফেরানোর আরেকটি সুযোগ নষ্ট হয় বার্সার। পাঁচ মিনিট পর ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ পেয়েছিল আথলেতিকো। কোকের তীব্র গতির শট ঝাঁপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন বার্সা গোলরক্ষক পিন্তো। ৭০ মিনিটে আবার সুযোগ হাতছাড়া করে আথলেতিকো। গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে পারেননি জাভি। দ্বিতীয়ার্ধের ৭৮ মিনিটে আচমকা একটা সুযোগ পেয়েছিলেন নেইমার। শেষ সময়ে ইনিয়েস্তার বদলে মাঠে নামা পেদ্রোর ক্রসে তার হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।
সবধরনের ইউরোপীয় প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এ নিয়ে সর্বশেষ ১৮ ম্যাচের ১৭টিতেই জয় পেল অ্যাথলেতিকো। বার্সেলোনা, রিয়াল মাদ্রিদের মতো বড় দলগুলোকে পেছনে ফেলে স্প্যানিশ লিগের পয়েন্ট তালিকারও শীর্ষে আছে দলটি। কোয়ার্টার ফাইনালে বার্সেলোনাকে হারিয়ে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অ্যাথলেটিকোই ফেবারিট।
প্রোব/এহ/ খেলা ১০.০৪.২০১৪

১০ এপ্রিল ২০১৪ | খেলা | ১৮:১৪:১৭ | ১৯:৩৬:৪০