A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

জয়ের ভিত গড়েছেন বোলাররা: সাঙ্গাকারা | Probe News

Man of the match.JPGপ্রোবনিউজ, ঢাকা : বেশ কিছু সময় ধৈর্য নিয়ে ব্যাটিং করেছেন ম্যাচ সেরা ব্যাটসম্যান কুমার সাঙ্গাকারা। উত্তেজিত ব্যাটিং করেনি মোটেও। ফাইনাল ম্যাচে নিজেও অসাধারণ অর্ধশতক হাঁকিয়েছেন। অন্যদিকে, জয়বর্ধন, দিলশান, পেরেরা দারুণ ব্যাটিং করলেও বোলাদেরই কৃতিত্ব দিলেন ম্যাচসেরার পুরস্কার জেতা এই লঙ্কান ব্যাটসম্যান। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটকে বিদায় জানানো বাঁহাতি ব্যাটসম্যান মনে করেন, ফাইনালে জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছেন বোলাররা।
মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাঙ্গাকারা বলেন, ‘শেষ ৪/৫ ওভারে আমরা অসাধরণ বল করেছি। বিরাট কোহলি আর মহেন্দ্র সিং ধোনির মতো ব্যাটসম্যান থাকার পরও তারা সহজে রান পাননি। শেষ ২৪ বলে কোনো বাউন্ডারি হয়নি, এটা অবিশ্বাস্য।’ সেনানায়েকে, মালিঙ্গা ও কুলাসেকারার শেষ ৪ ওভারে ভারত যোগ করে মাত্র ১৯ রান। এতে ভারত বড় টার্গেট দিতে পাড়েনি।
সাঙ্গাকরা বলেন, ‘বোলাররাই জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছে। ১৩০ রানের লক্ষ্য তাড়া করে যেকোনো দল যেকোনো উইকেটে তাড়া করে জেতা সম্ভব। কিন্তু এতো কম রানে প্রতিপক্ষকে বেধে ফেলা, সত্যিই অসাধারণ।’
বিদায় বেলায় সাঙ্গাকারা ও মাহেলা জয়াবর্ধনেকে বিশ্বকাপ ট্রফি উপহার দেয়ার কথা বলেছিলেন লাসিথ মালিঙ্গা। দলের সবার প্রচেষ্টাতেই দুই ব্যাটিং কিংবদন্তির শেষটা স্মরণীয় করে রাখা গেল বলে মনে করেন অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পাওয়া এই পেসার। তিনি বলেন, ‘সাঙ্গাকারা রানের জন্য লড়াই করেছিলেন। আমি তাকে বলেছিলাম, তোমার ছন্দে ফিরতে কেবল একটা ম্যাচই লাগবে। আজকে অসাধারণ এক ইনিংস খেলেছে। মাহেলাও তার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়েছে। ওর ইনিংসটিও খুব গুরুত্বপূর্ণ।’
৭৮ রানে চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে লাহিরু থিরিমান্নের আউট হওয়ার পর বেশ চাপে পড়েছিল শ্রীলঙ্কা। ওভার প্রতি তখন প্রায় সাড়ে সাত করে রান প্রয়োজন ছিল তাদের। ঠিক এ কারণেই থিসারাকে অ্যাঞ্জেলোর আগে নামানো হয়েছিল। ওর দ্রুত রান তোলার সামর্থ্য রয়েছে। দলের প্রত্যেকের সম্পর্কে আমার স্পষ্ট ধারণা রয়েছে। দলীয় পারফর্মের ব্যাপারে এমন মন্তব্য করেন এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ফাইনালের অধিনায়ক মালিঙ্গা।
অধিনায়কত্ব উপভোগ করছেন জানিয়ে তিনি বলেছেন, ‘কে কি করতে পারে, কার কি সামর্থ্য সবই আমি জানি। দশ বছর ধরে এই দলটির হয়ে খেলছি। আমি ভাগ্যে বিশ্বাস করি না, কঠোর পরিশ্রমের ফসল পেয়েছি।’
প্রোব/এহ/ খেলা ০৭.০৪.২০১৪

৭ এপ্রিল ২০১৪ | খেলা | ১৩:০৮:৪৮ | ১৬:০০:৫১