A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

অটিস্টিক শিশুদের সুযোগ করে দেয়ার আহবান প্রধানমন্ত্রীর | Probe News

PM.jpg

প্রোব নিউজ, ঢাকা: অটিস্টিক শিশুদের ঘরে বন্দি করে না রাখার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, অনেকে তাদের অটিস্টিক শিশুদের ঘরে বন্দি করে রাখেন। অনেক বাবা-মা তাদের ঘুরে লুকিয়ে রাখেন। এটা ঠিক নয়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, অটিস্টিক শিশুদের সুযোগ করে দিতে হবে যেন তারা সমাজের মূল স্রোতের সঙ্গে বাঁচতে পারে। বুধবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘৭ম বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস- ২০১৪’ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রতিবন্ধী উন্নয়ন অধিদফতরের উদ্বোধন ও জাতীয় প্রতিবন্ধী কমপ্লেক্সের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এসময় তিনি অনুষ্ঠানে আগত অটিস্টিক শিশুদের খোঁজ-খবর নেন। তাদের সঙ্গে কথা বলেন। মাথায় হাত বুলিয়ে, জড়িয়ে ধরে আদর করেন। প্রধানমন্ত্রী তানভীর নামে ১২ বছরের এক অটিস্টিক শিশুকে মঞ্চে তার পাশে বসান। অনুষ্ঠান শেষে তিনি তানভীরকে অটোগ্রাফও দেন। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য দেওয়ার সময়ও তানভীর পাশে ছিল। প্রধানমন্ত্রী তাকে স্নেহের পরশ বুলিয়ে দেন।
বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অটিস্টিক শিশুরাও এ সমাজের। তারাও আমাদের কারো না কারো সন্তান। কারো না কারো আত্মীয়। তাদের প্রতি আমাদের সহানুভূতি দেখাতে হবে। সমাজের মূল স্রোতের সঙ্গে তাদের একীভূত করতে হবে।
অটিস্টিক শিশুরা যাতে অবহেলার শিকার না হয়, সে বিষয়ে সবাইকে সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, অটিস্টিক শিশুদের দায়িত্ব প্রতিটি সচেতন নাগরিক, পরিবার ও রাষ্ট্রের। তারা যেন অবহেলার শিকার না হয়। তারা যেন মেধা বিকাশের সমান সুযোগ পায়। সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে তাদের নিরাপদ ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে হবে।

রাষ্ট্রের দায়িত্বের কথা বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাদের (অটিস্টিক শিশু) জীবনকে নিরাপদ রাখতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। অটিস্টিক শিশুদের তীক্ষ্ণ মেধার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এ সব শিশুদের মধ্যে অনেক মেধা রয়েছে। সঠিক পরিচর্যা করলে তাদেরও প্রতিভার বিকাশ ঘটতে পারে। তারাও হয়ে উঠতে পারে দেশের অমূল্য সম্পদ।
তিনি বলেন, প্রতিবছর আমার পহেলা বৈশাখ, ঈদসহ বিভিন্ন উৎসবের কার্ডে অটিস্টিক শিশুদের ছবি আঁকা থাকে। ২৫ থেকে ৩০ হাজার কার্ড ছাপা হয় আমার। আগামীতে প্রতিটি কার্ডে তিনটি করে ছবি দেবো।
আগামীতে জাতীয় পর্যায়ে অটিস্টিক শিশুদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করার কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মানুষের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের অন্যতম মাধ্যম খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চা। অটিস্টিকরাও এর বাইরে নয়। তারা আন্তর্জাতিক খেলাধুলায় অংশ নিয়ে বাংলাদেশের জন্য দুর্লভ সম্মান বয়ে এনেছে।
দেশে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি শনাক্তকরণ জরিপ প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, সারাদেশে বিভিন্ন ধরনের প্রতিবন্ধী ব্যক্তির সঠিক পরিসংখ্যান ছিল না। সরকার এটি তৈরির লক্ষ্যে কাজ করছে। সরকার প্রতিবন্ধীদের অধিকার, উন্নয়ন ও প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর বলে উল্লেখ করেন তিনি।
তথ্যপ্রযুক্তিতে প্রতিবন্ধীদের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে সরকারের পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থাকে পরিচালিত ‘একসেস টু ইনফরমেশন’ প্রকল্পের আওতায় ই-তথ্যকোষে একটি উইন্ডো খোলা হচ্ছে। প্রতিবন্ধী ও অটিস্টিক ভাইবোনেরা এই কর্মসূচির আওতায় সেবা পাবেন।
প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে সরকার অটিস্টিক ও নিউরো-ডেভেলপমেন্টাল প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্ট আইন-২০১৩ এর মাধ্যমে একটি ট্রাস্ট পরিচালনার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

১৩ মিনিটের বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথাও তুলে ধরেন। অনুষ্ঠান শেষে প্রতিবন্ধী শিশুদের পরিবেশিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। অটিস্টিক শিশুদের আঁকা চিত্রপ্রদর্শনী ঘুরে ঘুরে দেখেন তিনি। এ সময় তাদের কাছে টেনে প্রধানমন্ত্রী উৎসাহ দেন।
বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত রচনা প্রতিযোগীতায় বিজয়ী তিনজনের হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদিকে, পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলো- বিএন স্কুলের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী মোহাম্মদ এহসানুল ইসলাম, রাজশাহী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী আদ্রিতা আফরিন ও যশোর জিলা স্কুলের শিক্ষার্থী তৌশিকুল ইসলাম সিজান।
অনুষ্ঠানের একপর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী অটিস্টিক শিশুদের সঙ্গে ছবি তোলেন। সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন- সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী প্রমোদ মানকিন, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব নাছিমা বেগম।
অনুষ্ঠান শেষে সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর নেতৃত্বে অটিস্টিক শিশুদের একটি র্যা লি বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র থেকে জাতীয় সংসদ ভবনে গিয়ে শেষ হয়।
প্রোব/মুআ/জাতীয় ০২.০৪.১৪

২ এপ্রিল ২০১৪ | জাতীয় | ১৬:৫৫:৫২ | ১২:২১:২২

জাতীয়

 >  Last ›