A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

বারানসিতে বহিরাগতদের জমজমাট লড়াই | Probe News

baranoshi 12.jpgসুতীর্থ গুপ্ত, ভারত থেকে: বারানসির গঙ্গায় স্নান করে নিলে সব পাপ ধুয়ে যায়। এমনই কথা চালু শৈবতীর্থ হিসেবে পরিচিত বারানসির সর্বত্র। তবে হিন্দু ও সংখ্যালঘুদের পাশাপাশি বাসস্থান এই শৈবতীর্থে বহুকাল ধরে। রয়েছেন অন্য সব সম্প্রদায়ের মানুষ। কিন্তু এবারের নির্বাচনে বারানসিতে বহিরাগতদের আনাগোনা এতটাই বেড়ে গিয়েছে যে স্থানীয় মানুষরা বিরক্ত হলেও এই বহিরাগতদের লড়াই দেখবার জন্য সকলে মুখিয়ে রয়েছেন। বারানসি লোকসভা আসনে আসল লড়াইটা এবার বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে আম আদমি পার্টির অরবিন্দ কেজরিওয়ালের। তবে এই দুই প্রধান প্রতিপক্ষের মাঝে প্রায় সব দলের পরিচিত-অপিরিচিত যোদ্ধাও সামিল বারানসির ঐতিহ্য উদ্ধারে এবং গঙ্গার নিস্তরঙ্গ পানিকে সতত বহমান করার লক্ষ্য নিয়ে।

কংগ্রেস অবশ্য নরেন্দ্র মোদীর অহঙ্কারকে চুর্ণবিচুর্ণ করতে সমাজবাদী পার্টি ও বহুজন সমাজ পার্টির মত দলের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে সর্বসম্মত প্রার্থী দেবার চেষ্টা চালালেও তারা এখনও পর্যন্ত কোনও সিদ্ধান্তে আসতে পারে নি কাকে প্রার্থী করবে। অবশ্য বারানসিতে ভোটের এখনও একমাসের বেশি সময় বাকি। আগামী ১২মে এই কেন্দ্রে ভোট হলেও নির্বাচনী উত্তাপের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে বারানসি।

narendra-modi.jpgবারানসি এখন সেলিব্রিটি কেন্দ্র। বারানসির বুকে নরেন্দ্র মোদীর জনপ্রিয়তাকে টেনে তুলতে মোদীর মুখ দেওয়া হরেক জিনিষের ছড়াছড়্।ি এমনকি এক রুপির বিনিময়ে ভোট প্রার্থনার পাশাপাশি নরেন্দ্র মোদীর গুনকীর্তন সম্বলিত পাত্র দেওয়া হচ্ছে ভোটারদের হাতে হাতে। দেওয়া হচ্ছে মোদী মুখ সম্বলিত তাসও। এই বারানসি কেন্দ্রে গতবারের বিজয়ী সাবেক মন্ত্রী ও বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক মুরলি মনোহর যোশিকে দলের ইচ্ছেয় নিজের আসন ছেড়ে অন্যত্র সরে যেতে হয়েছে। এজন্য মনকষাকষিও হয়েছে যথেষ্ট। তবে উত্তর প্রদেশ থেকে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার এক কালের ঐতিহ্যকে মনে রেখেই সম্ভবত বিজেপি নরেন্দ্র দামোদর ভাই মোদীকে বারানসি নিশ্চিত আসন থেকে থেকে প্রার্থী করে উত্তরপ্রদেশে বিজেপির বিজয়রথের উদ্দাম যাত্রা সুগম করতে চেয়েছে।

আর তাই গত বার মাত্র ১৭ হাজার ২৯১ ভোটের ব্যবধানে জয়ী আসনে এবার মোদীকে কত ভোটের ব্যবধানে জয়ী করানো হবে তা নিয়েই ব্যস্ত বিজেপি নেতারা। প্রায় ১৫ লক্ষ ভোটার সম্বলিত এই কেন্দ্রে মোদী ৫ লক্ষাধিক ভোটে জয়ী হবেন বলে মনে করছেন বিজেপি অতি উৎসাহী নেতারা। কিন্তু মোদীকে যে সহজে পথ ছেড়ে দেবেন না তা দিল্লি থেকেই ঘোষণা করেছিলেন দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াকু মুখ অরবিন্দ কেজরিওয়াল। ৪৯ দিন দিল্লিতে সরকার চালিয়ে ল্যাজে-গোবরে হওয়া আম আদমি পার্টির উপর যদিও অনেকেরই ভরসা নেই। তাদের প্রচারের ফানুসও সময়ের সঙ্গে অনেকটাই চুপসে গিয়েছে। কিন্তু অরবিন্দ কেজরিওয়াল বারানসিতে মোদীকে জব্বর লড়াই দেবেন বলে পন করেছেন। আর তাই পচা ডিম আর কালির প্রলেপ গায়ে মেখেও তিনি জনতার গণভোটের রায় নিয়ে মোদীর বিরুদ্ধে প্রার্থী হয়েছেন। সেয়ানে সেয়ানে এই লড়াই দেখার জন্য মুখিয়ে রয়েছে গোটা দেশ।

KEJRIWAL.jpgবিজেপির মত প্রচারের জৌলুষ কেজরিওয়ালের নেই ঠিকই। তবে আম আদমি টুপিতে বারানসিকে ভরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি চলছে অনলাইনে সদস্যপদ নেবার কাজ। এই সদস্যরাই আম আদমির প্রধান প্রাণ শক্তি। সমাজবাদী পার্টিও বারানসিতে তাদেও প্রার্থীর নাম ঘোণা করেছে। যাদব প্রতিনিধি হিসেবে কৈলাসনাথ চৌরাশিয়াকে। বারনসির দেড় লক্ষ যাদব ভোট চৌরাশিয়া দাবি করলেও তিন লাখ মুসলমান ভোটের কতটা তিনি পাবেন তা নিয়ে সংশয় থেকেই যাচ্ছে। অথচ এতদিন পর্যন্ত উত্তর প্রদেশে সমাজবাদী পার্টিও সাফল্য টিকে ছিল এই মুসলমান ভোটের উপর নির্ভর করেই। কিন্তু মুজফ্ফরবাদের সাম্প্রতিক দাঙ্গা মুখ পুড়িয়েছে মুলায়ম পুত্র অখিলেশ যাদবের। তিনি মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দাঙ্গা ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছেন। এমনকি পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে পারেন নি দাঙ্গা দুর্গতদের।

এদিকে বহুজন সমাজপার্টি দলিত ভোট টানার লক্ষ্যে প্রার্থী দাঁড় করিয়েছে। আবার সিপিআইএম ও তৃণমূল কংগ্রেসও বারানসি বধে উপস্থিত। সিপিআইএম তাদের স্থানীয় নেতাকে প্রার্থী করলেও তৃণমূল কংগ্রেস বহিরাগত হিসেবে উড়িয়ে এনে বারানসিতে প্রার্থী করেছে সাবেক কংগ্রেস নেতা কমলাপতি ত্রিপাটির নাতনি ইন্দিরা তিওয়ারিতে। এই তিওয়ারর বিরুদ্ধে অবশ্য অভিযোগ তোলা হয়েছে যে, তিনি হিন্দু মহাসভার ঘনিষ্ট ছিলেন। কিন্তু এই মহাযুদ্ধের আসল সেনানী যারা বারানসির অলিত গলিতে থাকা সেই জনতার অভিমুখ কোন দিকে সেটা ভোটের দিনই বোঝা যাবে।

তবে বারানসি কেন্দ্রের মুসলমান ভোটারদের সংখ্যাটা উপেক্ষার মত নয়। বারানসির শাহি ইমাম তো ইতিমধ্যেই সকলকে সতর্ক করে দিয়েছেন মোদীকে নিয়ে। হর হর মহাদেবের অনুকরণে হরহর মোদী আওয়াজই বারানসির জ্ঞানবাপীর শাহি ইমাম আবদুল মাতিন নোমানিকে বেশি করেছে সজাগ করেছে। তিনি বলেছেন, বারানসির ইতিহাস ঘেঁটে দেখুন ব্যক্তিপূজার এমন নজির নেই। ভগবানকেও যিনি কেয়ার করেন না তার হাতে তো কেউই নিরাপদ নয়। তাই দলমত নির্বিশেষ সকলকে তিনি মোদীর বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন।

ফলে রাজনৈতিক সেলিব্রিটি যুদ্ধে মুসলমান ভোটের মোদীর কুলে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তেমনি অন্যান্য দলেরও নিজস্ব ভোট ব্যাংক রয়েছে। সেখানে বিজেপির ভাগ বসানোর সম্ভাবনা খুই কম। ফলে ভোট কাটাকাটি তীব্র হবে এই কেন্দ্রে। আর সেজন্যই কি মোদী বারানসিকে নিশ্চিত মনে না করে গুজরাটে নিজের রাজত্বে ভোদ্দরায় প্রার্থী হয়ে জয় নিশ্চিত করতে চেয়েছেন?
প্রোব/এসজি/সাউথএশিয়া/০১.০৪.২০১৪

১ এপ্রিল ২০১৪ | দক্ষিণ এশিয়া | ২১:১৪:০৯ | ১৩:২৩:৪৫

দক্ষিণ এশিয়া

 >  Last ›