A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

সান্ত্বনার জয় অধরাই রয়ে গেলো স্বাগতিকদের | Probe News

183029.jpgপ্রোবনিউজ,ঢাকা: বাংলাদেশের ষোল কোটি মানুষের হৃদয়ের আবেদনকে তুচ্ছ করে পরাজয়ের মালা আরো দীর্ঘ করলো মুশফিক বাহিনী। এশিয়া কাপে হতাশার পর টানা পরাজয় নিয়েই তারা শেষ করেছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টেনের লড়াই। প্রতিটি হার যেন বেদনার কাটাযুক্ত ফুলের মালা হয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটের গলার চারপাশে চেপে বসেছে। শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে শত চেষ্টা করেও জয় ছিনিয়ে আনতে পারেনি মুশফিক বাহিনী। সেমিফাইনালে ওঠা তো দূরের কথা জয়ই তাদের অধরায় রয়ে গেলো, সামান্য প্রত্যাশাটুকুও। মঙ্গলবার সুপার টেনের শেষ ম্যাচে ১৫ বল হাতে রেখেই ৭ উইকেটে সান্ত্বনার জয় পেলো অস্ট্রেলিয়া।
মঙ্গলবার মিরপুর স্টেডিয়ামে নিজেদের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ ২০ ওভার খেলে পাঁচ উইকেটে সংগ্রহ করে ১৫৩ রান। টাইগারদের দেয়া ১৫৪ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ২.৩ ওভার বাকি থাকতেই অসিরা পৌঁছে যায় জয়ের বন্দরে। অসিদের হারাতে হয়েছে তিনটি উইকেট। জয়ের এই পথে অস্ট্রেলিয়ার উদ্বোধনী জুটি (৯৮) অনেকটাই এগিয়ে দেয় দলকে। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ফিঞ্চ ৭১, ওয়ার্নার ৪৮ রানে সাজঘরে ফেরেন। ম্যাক্সওয়েল ফেরেন ৫ রানে। ওয়াইড ১৮ ও বেইলি ১১ রানে অপরাজিত থাকেন। বাংলাদেশের পক্ষে আল আমিন দুটি ও তাসকিন একটি উইকেট শিকার করেন।
টসে জিতে বাংলাদেশের অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ছিলেন। কিন্তু ওপেনিংয়ে তামিম-এনামুলের ব্যর্থতার পর কিছুটা হলেও স্বপ্ন রঙ্গিন করতে পেরেছিলো মুশফিক-সাকিব জুটি। প্রথম পাঁচ ওভারে দলীয় রান মাত্র ২১ সাকিব ষষ্ঠ ওভারে ওয়াটসনের বলে ১১ রান তুলে স্কোরবোর্ডে গতি বাড়ালেন। ৭.৫ ওভারে বলিঙ্গারের বলে বাউন্ডারি মেরে সাকিব দলীয় সংগ্রহ অর্ধশত রান। সাকিব ব্যাটে তখন ৩৫ রানে। এই জুটির কল্যাণে দশম ওভার শেষে দলীয় স্কোর ২ উইকেটে ৬৮ প্রাথমিক বিপর্যয় কেটে গেছে বলা যায়। সাকিবকে সাপোর্ট দিয়ে যাওয়া মুশফিক ১৬ রানে। এর পরের বলে ম্যাক্সওয়েলকে উড়িয়ে মেরে গ্যালারিতে বল ফেললেন অধিনায়ক মুশফিক।
১২ ওভার শেষে দলীয় রান ৮৮ ৪০ বলে চারটি বাউন্ডারি ও দুটি ছক্কা দিয়ে ক্যারিয়ারে চতুর্থ আর বিশ্বকাপে এবারের আসরে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ফিফটি হাঁকালেন বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। মুশফিক তখন ২৪ বলে ৩৫ রানে। দলীয় রান ১৫ ওভার শেষে ১১৬ সেই ২ উইকেটেই। ৪৩ রানে থাকা মুশফিক ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ফিফটির কড়া নাড়ছেন। কিন্তু ৩৬ বলে ৪৭ রানে থাকা মুশফিক (৫টি চার ও ১টি ছয়) ওয়াটসনের ডেলিভারি আকাশে তুলে দিলেন। ম্যাক্সওয়েল ক্যাচ মিস করলেন না। সাকিব ৬০ রানে সেট ব্যাটসম্যান। তার সঙ্গে যোগ দিলেন চতুর্থ ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ১৭ ওভার শেষে স্কোর ৩ উইকেটে ১২৩ সাকিব রানের গতি বাড়াতে গিয়ে ৬৬ রান করে বলিঙ্গার বলে ম্যাক্সওয়েলের হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদান নেন। পঞ্চম জুটিতে অফ-ফর্মে থাকা মাহমুদউল্লাহ আর নাসির খেলাটা শেষ করেন। তবে নাসিরের (১৪) অপরাজিত থাকা হলো না। শেষ বলে তিনি বোল্ড হন। মাহমুদউল্লাহ অপরাজিত থাকেন ৬ রানে।
বাংলাদেশের এমন পরাজয় সম্পর্কে মুশফিকুর রহীম বলেছেন, ‘পরাজয়ের গ্লানি নিয়ে বিদায় নিতে চাইনি। চেষ্টা করেছি শেষ হতাশা গোছানোর। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বিদায়ী ম্যাচে উন্নতি করেছে বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জয় পাওয়া অনেক কষ্টের। তারপরও ব্যাটিংয়ে দেড়শ রানের ইনিংস খেলেছি। নবাগত পেসার তাসকিনকে ক্যারিয়ারে প্রথম ম্যাচেই উইকেট শিকার করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন। আল-আমিনও ভালো বোলিং করেছে। তিনি আরো বলেন, স্পিন বিভাগ নিয়ে আশাবাদী হলেও অসিরা আমাদের স্পিনারদের বিপক্ষে বল ভালো খেলেছে।’
প্রোব/এহ/খেলা/০১.০৪.২০১৪

১ এপ্রিল ২০১৪ | খেলা | ১৯:৩৮:২২ | ১৯:৪৩:১৫