A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

ইসির বেফাঁস মন্তব্য সহিংসতায় উস্কানি! | Probe News

image_74717_0.jpgবেলায়েত হোসাইন, প্রোবনিউজ: সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হয়ে নির্বাচন কমিশন রাজনৈতিক বিষয়ে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেছে। এটা শুধু অন্যায়ই নয়, জাতির জন্য ক্ষতিকর। কোন দল সম্পর্কে মূল্যায়ন করা নির্বাচন কমিশনকে মানায় না। বিএনপি সম্পর্কে নির্বাচন কমিশনার আব্দুল মোবারকের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় এ মন্তব্য করেছেন রাজনীতিকসহ সমাজের বিশিষ্টজনরা।
রোববার বিকালে নির্বাচন কমিশনের মিডিয়া সেন্টারে পঞ্চম ধাপের নির্বাচনের প্রস্তুতি EC.jpgসম্পর্কে নির্বাচন কমিশনার আব্দুল মোবারক সাংবাদিকদের বলেছেন ‘নির্বাচন কমিশন মেরুদ-হীন বা কিছুই না, অথবা জিরো হলেও এই কমিশনের অধীনেই উপজেলা নির্বাচন করছে বিএনপি। এমনকি নাকে খত দিয়ে এই কমিশনের অধীনে নির্বাচন করছে তারা’। কমিশনারের এ ধরনের বেফাঁস মন্তব্যের পর বিতর্ক শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। বিশ্লেষকরা বলছেন, দায়িত্বশীল পদে থেকে ইসি মোবারকের এ মন্তব্যের পর নির্বাচন নিরপেক্ষ হতে পারে না। ইসির নিরপেক্ষতা প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন এই কমিশনার।
মোবারকের এ বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানাতে প্রোবের মুখোমুখি হন কয়েকজন রাজনীতিক ও বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব। এ ব্যাপারে স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদ বলেন, কোন দায়িত্বশীল ব্যক্তি এ ধরনের আচরণ করতে পারে না। এটা খুবই আপত্তিকর মন্তব্য। কোন রাজনৈতিক দল নির্বাচনে আসলো কি না আসলো তা নিয়ে বাজে মন্তব্য করার এখতিয়ার নির্বাচন কমিশনের নেই।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ প্রোবনিউজকে বলেন, আসলে আমরা কেউই ভাষার ব্যাপারে সচেতন না। তাই এ ধরণের বেফাঁস কথা হয়তো বলেছেন।সিহংসতা.jpg অথবা, তিনি হয়তো সরকারি দলকে খুশি করতে এধরনের মন্তব্য করেছেন। না হয়, উনি নিজেই এ ধরনের কথা বলতে অভ্যস্ত।
ইসি মোবারকের এই মন্তব্যের সমালোচনা করেছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারাও। এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগ নেতা নূহ উল আলম লেনিন বলেন, ইসি যেহেতু একটা অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান, তাই এ ধরণের রাজনৈতিক মন্তব্য করা মোটেও উচিত নয়।
একজন নির্বাচন কমিশনার হয়ে এ ধরণের মন্তব্যের বিরোধিতা করেছেন বাম রাজনীতিকরাও। বাংলাদেশের কমিউনিষ্ট পার্টি-সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম প্রোবনিউজকে বলেন, সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হয়ে ইসি একটা রাজনৈতিক বিষয়ে নিজেকে জড়িত করেছে। এটা শুধু অন্যায়ই নয় বরং জাতির জন্য ক্ষতিকর। কোন দল সম্পর্কে মূল্যায়ন করা নির্বাচন কমিশনকে মানায় না।
এদিকে নির্বাচন কমিশনের এ বক্তব্যের তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন বিএনপি নেতারা।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, ইসি মোবারকের বক্তব্য অনুযায়ী তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিকে ধারণ করেন। এটা হয়তো আওয়ামী লীগের কোন নেতা বলতে পারে। কিন্তু নির্বাচন কমিশনার হয়ে এ ধরনের কথা বলা প্রমাণ করে যে তিনি এ পদের যোগ্য নন।
বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ইসি মোবারক প্রমাণ করেছেন তিনি ছাত্রলীগের একজন সক্রিয় নেতা। তার এই বক্তব্য দ্বারা সোমবারের (পঞ্চম ধাপ) নির্বাচনে সহিংসতাকে উস্কে দেয়া হয়েছে। তিনি পদত্যাগ করে হয়তো এ ধরণের মন্তব্য করতে পারতেন।
প্রসঙ্গত, সোমবার ৩৪ জেলার ৭৩টি উপজেলা পরিষদের (পঞ্চম পর্ব) নির্বাচন অনুষ্ঠত হবে। তৃতীয় ও চতুর্থ ধাপের নির্বাচনে ব্যাপক সহিংসতা, ভোট জালিয়াতি, ব্যালট পেপার ছিনতাই, প্রাণহানিসহ নজিরবিহীন অনিয়ম হয়েছে। সোমবারের নির্বাচনেও সহিংসতার আশঙ্কা করছেন ভোটার, প্রার্থীসহ সর্বস্তরের মানুষ। এ অবস্থায় নির্বাচন কমিশনার বেফাঁস মন্তব্য করায় পরিস্থিতি আরো ঘোলাটে হতে পাওে বলে মন্তব্য করেছেন সচেতন মহল।
প্রোব/বিএইচ/জাতীয়/৩০.০৩.২০১৪

 

 

৩০ মার্চ ২০১৪ | জাতীয় | ২০:২১:৩২ | ১২:১৪:৫৫

জাতীয়

 >  Last ›