A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

অপ্রতিরোধ্য মশা, নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ সংশ্লিষ্ট দু’ দপ্তর | Probe News

Mosquito 29.10.2015অপ্রতিরোধ্য মশা, নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ সংশ্লিষ্ট দু’ দপ্তর

শফিক রহমান, প্রোবনিউজ: ঢাকানগরীর মশা নিধনে সরকারের দুটি দপ্তর যৌথভাবে কাজ করছে। কিন্তু কোনভাবেই মশার সঙ্গে লড়াইয়ে পেরে উঠছে না তারা। বরং মশা নিধনে বরাবরই গাফেলতি ও ব্যর্থতার অভিযোগ রয়েছে। যদিও মশক নিবারণ দপ্তর বলছে, বিশ্বের ১০টি ভয়ংকর প্রাণীর মধ্যে মশা হলো একটি। যাকে পুরোপুরি নিবারণ সম্ভব নয়, নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে। মশক নিধনে ব্যর্থতার অভিযোগের তীর বরাবরই সিটি কর্পোরেশনের দিকে। কিন্তু মশক নিয়ন্ত্রণে সিটি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে ‘মশক নিবারণ দপ্তর’। জানা গেছে, ১৯৪৮ সালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে ‘মশক নিবারণ প্রকল্প’ নামে দপ্তরটির কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। এর পরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনেই প্রকল্পটি দপ্তরে রূপ নেয় এবং ১৯৮০ সালে এটি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যুক্ত করা হয়।

বর্তমানে দপ্তরটির জনবল সংখ্যা ৩৯৬ জন। এদের মধ্যে ৩১৩জন ক্রু বা স্প্রে-ম্যান এবং ২১জন সুপারভাইজার। বলা হচ্ছে, নগরীর মশক নিবারণে দপ্তরটি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সঙ্গে সমন্বয়কের ভূমিকা পালন করছে। তবে মশক নিধনে সরকারের এই দুটি দপ্তর একসঙ্গে কাজ করলেও বাস্তবে কখনোই স্বস্থিতে ছিলো না নগরবাসী। বরং মশার উপদ্রবকেই নগরীর অন্যতম সমস্যা বলে মনে করছেন বেশিরভাগ নগরবাসী।

গত ২৮ এপ্রিলের মেয়র নির্বাচনের পূর্বে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকার ৩৬টি ওয়ার্ডে জনজীবনে সংকট ও সমস্যা নিয়ে একটি জরিপ পরিচালনা করেছিলেন ডিসিসি উত্তরের বর্তমান মেয়র আনিসুল হক। ওই জরিপে মোট ৭৬ হাজার ৭৩৫ জন বাসিন্দা অংশগ্রহণ করেছিলেন। এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উত্তরদাতা অর্থাৎ ৬৮.৩ শতাংশই বলেছিলেন, ঢাকার প্রধান সমস্যা ‘মশা’। নির্বাচনের আগে প্রকাশিত নির্বাচনী ইশতেহারেও ঢাকা দক্ষিণ এবং ঢাকা উত্তরের বর্তমান মেয়রদ্বয়ও ঢাকার অন্যতম প্রধান সমস্যা হিসেবে ‘মশা’র কথাই উল্লেখ করেছিলেন।

জানা গেছে, নব নির্বাচিত এই দুই মেয়রের প্রথম বাজেটে অর্থাৎ ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটে মশক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১৪ কোটি টাকা। যা আগের বছরের সংশোধিত বাজেটে বরাদ্দের প্রায় দ্বিগুণ। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বাজেটেও মশক নিয়ন্ত্রণে বরাদ্দ রাখা হয়েছে সাড়ে ১২ কোটি। যা গত বছরের প্রায় সমান। তবে ইশতেহারের ঘোষণা এবং বাজেট বরাদ্দ এর কোন কিছুরই বাস্তব সুফল পাননি নগরবাসী।

ঢাকা দক্ষিণের ধানমন্ডি এলাকার বাসিন্দা অনু ইসলামের অভিযোগ, “মশক নিধনে প্রতিবছর সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ ওষুধ ক্রয় করে জানি, ওই ওষুধ ছিটাতে এবং স্প্রে করতে জনবলও আছে। কিন্তু আমার এলাকায় সর্ব শেষ কবে মশার ওষুধ স্প্রে করা হয়েছে তা আমি বলতে পারবো না”। একই অভিযোগ ঢাকা উত্তরের মোহাম্মদপুর এলাকার এক বাসিন্দার। যদিও এই অভিযোগ মানতে চান না ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান। তিনি বলেন, “নিয়মিত স্প্রে করা হচ্ছে না এই অভিযোগ সঠিক নয়। কয়েকদিন আগেই ধানমন্ডি এলাকা থেকে আসার সময় দেখলাম আমার কর্মীরা মশার ওষুধ স্প্রে করছেন”। তবে মশক নিবারণ দপ্তরের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলছেন জনবল ঘাটতির কথা।

এদিকে নিয়মিত মশক নিধন কার্যক্রম না থাকার কারণে রাজধানীতে এ বছর ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা গত আট বছরের রেকর্ড অতিক্রম করেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার হিসাব অনুযায়ী ২১ অক্টোবর পর্যন্ত রাজধানীতে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২৬০১ জন। ২০০৬ সালে এর সংখ্যা ছিল ২২০০ জন।

আসন্ন শীত মওসুমে মশার উপদ্রব আরো বাড়তে পারে, এমন আশংকা করে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ক্রাস প্রোগ্রাম চালানো হবে। তিনি আরো জানান, এরও আগে গত মার্চে একবার ক্রাস প্রোগ্রাম চালানো হয়েছে; ঢাকা দক্ষিণ এলাকার ৫৬৯.৪৮ বিঘার কচুরিপানা পরিস্কার করা হয়েছে। এর পরে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে ডেঙ্গু প্রতিরোধে আরেকবার ক্রাস প্রোগ্রাম চালানো হয়েছে; জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে রোড শো ও র্যালি অনুষ্ঠিত হয়েছে; এক লাখ লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে; ১১ হাজার ৪০০ পোস্টার লাগানো হয়েছে। তবে সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষের এ উদ্যোগ দেরিতে হয়েছে বলে মনেসকরছেন মশক নিধন সংশ্লিষ্টরা। প্রসঙ্গত, ঢাকা উত্তরের মশক নিয়ন্ত্রণে মোট কর্মীর সংখ্যা ২৭৯ জন এবং ঢাকা দক্ষিণে মোট কর্মীর সংখ্যা ২৮৩ জন। এছাড়া ঢাকা দক্ষিণে স্প্রে মেশিন আছে ৩১০টি এবং ফগার মেশিন আছে ২১৩টি।

প্রোব/পি/শর/জাতীয়/২৯.১০.২০১৫

২৯ অক্টোবর ২০১৫ | জাতীয় | ১৭:২৩:৩৯ | ১১:৫১:২৩

জাতীয়

 >  Last ›