A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

সিনেমা নয়, বাস্তবের বাজরাঙ্গী ভাইজান ও মুন্নীর সন্ধান | Probe News

সিনেমা নয়, বাস্তবের বাজরাঙ্গী ভাইজান ও মুন্নীর সন্ধান

প্রোবনিউজ, ডেস্ক: ১৭ জুলাই মুক্তি পেয়েছে সালমান খান অভিনীত ‘বাজরাঙ্গী ভাইজান’। ছবিতে একটি বোবা মেয়েকে পাকিস্তানে তার নিজের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয় সাল্লু ভাই। রিল লাইফের মতো রিয়েল লাইফেও করাচিতে সন্ধান পাওয়া গেছে এরকম আরও এক মুন্নির। তার নাম গীতা, মেয়েটি ভারতীয়। ১৩ বছর ধরে পাকিস্তানে রয়েছে বাস্তবের এই মুন্নি। ২৩ বছর বয়সী গীতা শুধু বোবাই নয়, কানেও শুনতে পায় না। অনেক সন্ধান করেও ভারতে তার পরিবারের খোঁজ এখনও মেলেনি।

সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার গ্রুপ ইধি ফাউন্ডেশনের এক সদস্য ফইসল ইধি জানিয়েছেন, ১৩ বছর আগে পঞ্জাব রেঞ্জার্স গীতাকে তাদের কাছে নিয়ে আসে। বহু বছর ধরে মেয়েটির বাড়ির লোকের খোঁজ করা হচ্ছে। কিন্তু তার বাড়ি কোথায় বা তা তার পরিবারের কোনও সন্ধান পাওয়া যায়নি। তাই পরিবারের কাছে ফিরেও যেতেও পারছে না গীতা। উল্লেখ্য, সেখানেই তার ‘গীতা’ নামটি রাখা হয়। একমাত্র ইধির সদস্যদের সঙ্গেই আকারে ইঙ্গিতে কথা বলতে পারে গীতা।

জানা গিয়েছে, ১৩ বছর আগে কোনওভাবে সীমান্ত পেরিয়ে পাক-এলাকায় ঢুকে পড়েছিল বাচ্চা মেয়েটি। সেখানেই তাকে খুঁজে পায় পাক-রেঞ্জার্স বাহিনী। তারাই তাকে ওই ফাউন্ডেশনের হাতে তুলে দেয়। তারপর থেকে গীতার কাছ থেকে তার পরিবারের বিভিন্ন সূত্র পাওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। তাকে মোবাইলে ভারতের ম্যাপ দেখানো হলে সে প্রথমে ঝাড়খণ্ড এবং তারপর তেলেঙ্গানাকে চিহ্নিত করে। এই সূত্র ধরে সন্ধানও চালানো হয়েছে। তার আঙুলের এবং মুখের অঙ্গভঙ্গি থেকে এটুকু বোঝা গেছে যে, তার ৭ ভাই এবং ৪ বোন রয়েছে।

ফইসল জানিয়েছে, গীতা এমনিতে কিছুই লিখতে পারে না। তবে হিন্দি অক্ষর দেখে দেখে লিখতে পারে সে। তিনি জানিয়েছেন, গীতার জন্য ওই ফাউন্ডেশনে আলাদা ঘরের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেখানে রাখা হয়েছে বিভিন্ন হিন্দু দেবদেবীর ছবিও।

'বাজরাঙ্গী ভাইজান' ছবির সাফল্য ওই সমিতির লোকজনদের গীতাকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিতে আরও অনুপ্রাণিত করেছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মানবাধিকার কর্মী তথা প্রাক্তন মন্ত্রী আনসার বার্নি ৩ বছর আগে যখন ভারতে এসেছিলেন, তখন তিনি গীতার প্রসঙ্গ উল্লেখ করেছিলেন। গীতার পরিবারের খোঁজ পেতে ফেসবুকেও প্রচারও চালানো হয়।

ভারতীয় দূতাবাসের পক্ষ থেকেও গীতা সম্পর্কে তথ্য এবং তার ছবি তুলে নিয়ে গিয়ে সন্ধান চালানো হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। ভারতীয় সাংবাদিকরাও তার পরিবারের খোঁজ নিচ্ছে। তবে এখনও সদর্থক কোনও খবরই মেলেনি।

ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে গীতাকে পাকিস্তানেই এক হিন্দু ছেলের সঙ্গে বিয়ে করে সেখানেই থেকে যাওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু সে জানিয়েছে, ভারতে ফিরতে পারলেই বিয়ের পিঁড়িতে বসবে, নয়তো নয়।

প্রোব/পি/দক্ষিণএশিয়া/০৩.০৮.২০১৫

 

৩ আগ্‌স্ট ২০১৫ | দক্ষিণ এশিয়া | ১৭:৪২:৩৬ | ১৭:২২:৫১

দক্ষিণ এশিয়া

 >  Last ›