A PHP Error was encountered

Severity: Notice

Message: Only variable references should be returned by reference

Filename: core/Common.php

Line Number: 257

বাংলাদেশের কাছে তথ্য চাওয়ার কথা স্বীকার করলো এনআইএ | Probe News

বাংলাদেশের কাছে তথ্য চাওয়ার কথা স্বীকার করলো এনআইএ

প্রোবনিউজ,ডেস্ক : ভারতের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা (এনআইএ) প্রথমবারের মতো স্বীকার করলো, পশ্চিমবঙ্গের খাগড়াগড় বিস্ফোরণে জড়িত থাকার অভিযোগে চার বাংলাদেশীর সম্পর্কে বাংলাদেশ সরকারের কাছে তথ্য চেয়েছে। গতকাল এ খবর দিয়েছে অনলাইন টাইমস অব ইন্ডিয়া। এতে বলা হয়, ওই বিস্ফোরণ ঘটনায় ২৩শে জুলাই সম্পূরক চার্জশিট দিয়েছে এনআইএ। এতে বিশেষ করে জামা’আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি)’র দুই সদস্য সুমন ওরফে সাদিক ও বোমা মিজানকে গ্রেপ্তার করার কথা বলা হয়েছে। অভিযোগ আছে যে, তারা ভারতে সন্ত্রাসী নেটওয়ার্ক ছড়িয়ে দিতে সহায়তা করছিল।

এ বিষয়ে শনিবার এনআইএ’র পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি দেয়া হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, পলাতকদের সম্পর্কে তথ্য সরবরাহ ও তাদেরকে গ্রেপ্তার করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। এনআইএ’র এক সূত্র বলেছেন, তারা যে সম্পূরক চার্জশিট দিয়েছেন তাতে রয়েছে গ্রেপ্তার হওয়া তিনজন ও পলাতক তিনজনের নাম। এ নিয়ে বর্ধমান জেলার খাগড়াগড় বিস্ফোরণে মোট জড়িতের সংখ্যা দাঁড়ালো ২৭। যাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং চার্জশিটে যাদের নাম আছে তার মধ্যে রয়েছে মতিউর রহমান শেখ, লাল মোহাম্মদ ওরফে লালটু ও আবদুল ওয়াহাব মোমিন। এর মধ্যে মতিউর রহমান শেখ পশ্চিমবঙ্গের নদীয়ার। বাকি দু’জন মুর্শিদাবাদের।

চার্জশিটে পলাতক হিসেবে যে তিনজনের নাম রয়েছে তারা হলো- নদীয়ার সাদিক ওরফে সুমন, জহিরুল শেখ ও বীরভূমের মুস্তাফিজুর রহমান ওরফে তুহিন। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, তদন্তে দেখা গেছে, জেএমবি ভারতে তাদের নেটওয়ার্ক স্থাপন করেছে। প্রথমেই তা করেছে তারা পশ্চিমবঙ্গে, আসাম ও ঝাড়খণ্ডে। ভারতে প্রথমে তারা সদস্য সংগ্রহ ও তাদেরকে প্রশিক্ষণ দেয়া, সংগঠিত করার চেষ্টা করেছে। তাদেরকে ভারতীয় দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় অভিযুক্ত করা হয়েছে।

এনআইএ সূত্র বলেছেন, যখন দেখা গেছে, ২০০৭ সালে ফাঁসি কার্যকর হওয়া বাংলাভাই ২০০৫ সালে পশ্চিমবঙ্গ সফর করেছিল তদন্ত সেদিকে যাচ্ছে তখনই বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে তথ্য চাওয়ার প্রথম পদক্ষেপ নেয়া হয়। ২০০৫ সালে বাংলাভাই পশ্চিমবঙ্গের বেশ কতগুলো জেলা সফর করেছিল। এ সময়ে রাজ্যে জেএমবি’র ঘাঁটি গড়ার চেষ্টা করেছিল সে। সিদ্দিকুল ইসলাম ওরফে বাংলাভাই কিভাবে নেটওয়ার্ক সাজিয়েছিল তা বেরিয়ে আসে ৯ বছর পরে খাগড়াগড় বিস্ফোরণের তদন্তে।

প্রোব/পি/দক্ষিণএশিয়া/২৭.০৭.২০১৫

 

২৭ জুলাই ২০১৫ | দক্ষিণ এশিয়া | ১১:৪৬:২৯ | ১৫:৫৬:৪৮

দক্ষিণ এশিয়া

 >  Last ›